ঢাকা ০৭:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

রায়পুরায় ১৯ ঘণ্টা পর স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

নরসিংদী প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৩:৫৬:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪ ১০৯ বার পড়া হয়েছে

সংগৃহীত

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Student :

নরসিংদীর রায়পুরায় বন্ধুদের সঙ্গে মেঘনা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজের ১৯ ঘণ্টা পর স্কুলছাত্র সৈকত দাসের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল তার মরদেহটি উদ্ধার করে।

রবিবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার আমিরগঞ্জের আটকান্দি নীলকুঠি এলাকার বিচারপতি বাড়ির ঘাটে গোসনে নেমে নিখোঁজ হয় সৈতক দাস।

সৈকত দাস মনোহরদী উপজেলার তেছরি এলাকার রাষ মহন দাসের ছেলে এবং স্থানীয় একটি স্কুলের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বোনের বাড়ি নরসিংদীর শহরের ঘোড়াদিয়া বেড়াতে আসেন সৈকত। পরে রবিবার দুপুরে কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে রায়পুরা উপজেলার আটককান্দি নীলকুঠি এলাকায় যায় সে। ঘুরাঘুরির এক পর্যায়ে বিকেল ৩টার দিকে সৈকতসহ তার বন্ধুরা মিলে ওই এলাকার বিচারপতি বাড়ির ঘাটে মেঘনা নদীতে গোসল করতে নামে। ওই সময় তার বন্ধুরা গোসল শেষে পাড়ে উঠতে পারলেও সাঁতার না জানায় পানিতে তলিয়ে যায় সৈকত।

পরে স্থানীয় মেম্বার আবু বক্করকে বিষয়টি জানালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল দিয়ে সহযোগিতা চান তিনি। এদিকে খবর পেয়ে নরসিংদী ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে আসেন। কিন্তু ততক্ষণে রাত হয়ে যায়। অন্ধকার হয়ে যাওয়ায় উদ্ধার অভিযান না করেই ফিরে যায় ডুবুরি দল। পরে সোমবার সকালে উদ্ধারে নেমে সকাল ১০টার দিকে সৈকতের মরদেহ উদ্ধার করে।

আমিরগঞ্জ ইউপি সদস্য আবু বক্কর বলেন, সন্ধ্যা খবর পাই সৈকত নামে এক শিক্ষার্থী নদীতে ডুবে গেছে। পরে ৯৯৯-এ কল দিয়ে বিষয়টি জানাই। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দল আসতে রাত হয়ে যায়। এ কারণে সোমবার তারা অভিযান চালায়।

আমিরগঞ্জ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসাআই) আমিনুল ইসলাম বলেন, বন্ধুদের সঙ্গে নদীতে গোসলে নেমে নিখোঁজ হওয়া শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

/শিল্পী/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

রায়পুরায় ১৯ ঘণ্টা পর স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০৩:৫৬:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০২৪

Student :

নরসিংদীর রায়পুরায় বন্ধুদের সঙ্গে মেঘনা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজের ১৯ ঘণ্টা পর স্কুলছাত্র সৈকত দাসের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল তার মরদেহটি উদ্ধার করে।

রবিবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার আমিরগঞ্জের আটকান্দি নীলকুঠি এলাকার বিচারপতি বাড়ির ঘাটে গোসনে নেমে নিখোঁজ হয় সৈতক দাস।

সৈকত দাস মনোহরদী উপজেলার তেছরি এলাকার রাষ মহন দাসের ছেলে এবং স্থানীয় একটি স্কুলের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বোনের বাড়ি নরসিংদীর শহরের ঘোড়াদিয়া বেড়াতে আসেন সৈকত। পরে রবিবার দুপুরে কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে রায়পুরা উপজেলার আটককান্দি নীলকুঠি এলাকায় যায় সে। ঘুরাঘুরির এক পর্যায়ে বিকেল ৩টার দিকে সৈকতসহ তার বন্ধুরা মিলে ওই এলাকার বিচারপতি বাড়ির ঘাটে মেঘনা নদীতে গোসল করতে নামে। ওই সময় তার বন্ধুরা গোসল শেষে পাড়ে উঠতে পারলেও সাঁতার না জানায় পানিতে তলিয়ে যায় সৈকত।

পরে স্থানীয় মেম্বার আবু বক্করকে বিষয়টি জানালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল দিয়ে সহযোগিতা চান তিনি। এদিকে খবর পেয়ে নরসিংদী ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে আসেন। কিন্তু ততক্ষণে রাত হয়ে যায়। অন্ধকার হয়ে যাওয়ায় উদ্ধার অভিযান না করেই ফিরে যায় ডুবুরি দল। পরে সোমবার সকালে উদ্ধারে নেমে সকাল ১০টার দিকে সৈকতের মরদেহ উদ্ধার করে।

আমিরগঞ্জ ইউপি সদস্য আবু বক্কর বলেন, সন্ধ্যা খবর পাই সৈকত নামে এক শিক্ষার্থী নদীতে ডুবে গেছে। পরে ৯৯৯-এ কল দিয়ে বিষয়টি জানাই। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরি দল আসতে রাত হয়ে যায়। এ কারণে সোমবার তারা অভিযান চালায়।

আমিরগঞ্জ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসাআই) আমিনুল ইসলাম বলেন, বন্ধুদের সঙ্গে নদীতে গোসলে নেমে নিখোঁজ হওয়া শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

/শিল্পী/