ঢাকা ০৭:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

ব্রহ্মপুত্র নদে পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট

কিশোরগঞ্জ প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৯:৪১:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪ ১৪৮ বার পড়া হয়েছে

সংগৃহীত

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Brahmaputra river :

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর পৌর এলাকার যতো ময়লা ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদ ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে।

জানা যায়, দীর্ঘ ১৮ বছরেও সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অভাবে পৌরবাসী পরিচ্ছন্নতার সুফল পাচ্ছে না। ২০০৬ সালে ৫.৪৬ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত পৌরসভাটি ২০১৬ সালে ’বি’ গ্রেডে উন্নীত হয়। কিন্ত দুই মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়া বর্তমান মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকন। দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হওয়ার আগে যদিও তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলেন ফের মেয়র পদে নির্বাচিত হলে ডামিং স্টেশন স্থাপনসহ আধুনিক বর্জ্য ব্যস্থাপনার ব্যবস্থা করবেন। দ্বিতীয় মেয়াদের ২ বছর অতিবাহিত হলেও কাজের কাজ কোনো কিছুই হয়নি বরং নিত্য দিনের ময়লা ফেলা হচ্ছে উন্মুক্ত স্থানে।

হোসেনপুর পৌরসভায় পরিচ্ছন্নতা কর্মী খাতা কলমে ২৪ জন থাকলেও কাজ করেন মাত্র ৫ জন। ময়লা ফেলার জন্য দুটি ভার্গার ট্রাক থাকলেও একটি ব্যবহার করা হয়; আরেকটি খোলা জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে ফেলে রাখায় সেটিও নষ্ট হয়ে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে রয়েছে।

পৌর এলাকাটি ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত হলেও অধিকাংশ এলাকাই এখনো গ্রামই রয়ে গেছে। কিন্তু পৌর এলাকার মধ্যে বাজারের অবস্থান ৮,৭, ১, ২, ৩ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বেশির ভাগ অংশই বাজার সংশ্লিষ্ট ও আবাসিক এলাকা হওয়ায় সেখানকার ময়লা ফেলার নির্দিষ্ট জায়গায় কোনো ডাস্টবিনই নেই। যে জন্য বাসাবাড়ি ও দোকান-পাটের ময়লাগুলো প্রতিদিন উন্মুক্ত স্থানে ফেলে রাখা হয়। যা পরদিন সকাল ৮টার পর একটি পিকআপ গাড়িতে ৪-৫ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী উন্মুক্ত স্থানে ফেলে রাখা ময়লাগুলো নিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদ ভরাট করছে। অন্য দিকে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে।

পৌর এলাকায় বসবাস করা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ মূল সড়কের শুধুমাত্র হাসপাতাল চৌরাস্তা থেকে মিষ্টিপট্রি পর্যন্ত ৫০০-৬০০ ফুট রাস্তা একজন ঝাড়ুদার রাতে ঝাড়ু দিয়ে থাকেন। এছাড়া বাকি রাস্তায় ঝাড়ু না দেওয়ার কারণে ধুলাবালু রাস্তায় জমে হাঁটু পর্যন্ত থাকলেও সেগুলো পরিষ্কার করা হয় না। যে জন্য রাস্তার ধুলোবালু অনেক সময় ব্যবসায়ীগণ তাদের দোকানের সামনের অংশ নিজ উদ্যোগে পরিষ্কার করে থাকেন। রাস্তায় ধুলোবালু অল্প বৃষ্টিতে কাঁদার সৃষ্টি হয়ে পানি প্রবাহের পথ বন্ধ করে দুর্বাঘাস গজিয়ে রয়েছে। যে জন্য শহর প্রকল্পের আওতায় রাস্তাগুলো ড্রেনের পানি জমে রাস্তাগুলো ড্যামেজ হয়ে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়ে যাচ্ছে।

প্যানেল মেয়র নাজমুল হক লিমন বলেন, বৃষ্টির আগেই ড্রেনগুলো পরিষ্কার করা জরুরি। প্রতিদিনের পৌর এলাকার ময়লা ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ নষ্ট করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ার বিষয়ে হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিন্দ্য মন্ডল জানান, মেয়রকে প্রতিমাসেই মাসিক সভায় উপস্থিত হওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হলেও তিনি সেখানে উপস্থিত হন না। তিনি যদি আমাদের কাছে ডাম্পিংয়ের বিষয়ে সহায়তা নিতে চান তা হলে আমরা এ বিষয়ে চিঠি লিখে সরকারিভাবে সহায়তা করতে পারি।

পৌর মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকন বলেন, এটি একটি ছোট পৌরসভা। তেমন কোনো আয় না থাকায় এতকিছু করা সম্ভব নয়।

/শিল্পী/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ব্রহ্মপুত্র নদে পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট

আপডেট সময় : ০৯:৪১:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪

Brahmaputra river :

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর পৌর এলাকার যতো ময়লা ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদ ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে।

জানা যায়, দীর্ঘ ১৮ বছরেও সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অভাবে পৌরবাসী পরিচ্ছন্নতার সুফল পাচ্ছে না। ২০০৬ সালে ৫.৪৬ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত পৌরসভাটি ২০১৬ সালে ’বি’ গ্রেডে উন্নীত হয়। কিন্ত দুই মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়া বর্তমান মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকন। দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হওয়ার আগে যদিও তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলেন ফের মেয়র পদে নির্বাচিত হলে ডামিং স্টেশন স্থাপনসহ আধুনিক বর্জ্য ব্যস্থাপনার ব্যবস্থা করবেন। দ্বিতীয় মেয়াদের ২ বছর অতিবাহিত হলেও কাজের কাজ কোনো কিছুই হয়নি বরং নিত্য দিনের ময়লা ফেলা হচ্ছে উন্মুক্ত স্থানে।

হোসেনপুর পৌরসভায় পরিচ্ছন্নতা কর্মী খাতা কলমে ২৪ জন থাকলেও কাজ করেন মাত্র ৫ জন। ময়লা ফেলার জন্য দুটি ভার্গার ট্রাক থাকলেও একটি ব্যবহার করা হয়; আরেকটি খোলা জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে ফেলে রাখায় সেটিও নষ্ট হয়ে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে রয়েছে।

পৌর এলাকাটি ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত হলেও অধিকাংশ এলাকাই এখনো গ্রামই রয়ে গেছে। কিন্তু পৌর এলাকার মধ্যে বাজারের অবস্থান ৮,৭, ১, ২, ৩ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বেশির ভাগ অংশই বাজার সংশ্লিষ্ট ও আবাসিক এলাকা হওয়ায় সেখানকার ময়লা ফেলার নির্দিষ্ট জায়গায় কোনো ডাস্টবিনই নেই। যে জন্য বাসাবাড়ি ও দোকান-পাটের ময়লাগুলো প্রতিদিন উন্মুক্ত স্থানে ফেলে রাখা হয়। যা পরদিন সকাল ৮টার পর একটি পিকআপ গাড়িতে ৪-৫ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী উন্মুক্ত স্থানে ফেলে রাখা ময়লাগুলো নিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদ ভরাট করছে। অন্য দিকে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে।

পৌর এলাকায় বসবাস করা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ মূল সড়কের শুধুমাত্র হাসপাতাল চৌরাস্তা থেকে মিষ্টিপট্রি পর্যন্ত ৫০০-৬০০ ফুট রাস্তা একজন ঝাড়ুদার রাতে ঝাড়ু দিয়ে থাকেন। এছাড়া বাকি রাস্তায় ঝাড়ু না দেওয়ার কারণে ধুলাবালু রাস্তায় জমে হাঁটু পর্যন্ত থাকলেও সেগুলো পরিষ্কার করা হয় না। যে জন্য রাস্তার ধুলোবালু অনেক সময় ব্যবসায়ীগণ তাদের দোকানের সামনের অংশ নিজ উদ্যোগে পরিষ্কার করে থাকেন। রাস্তায় ধুলোবালু অল্প বৃষ্টিতে কাঁদার সৃষ্টি হয়ে পানি প্রবাহের পথ বন্ধ করে দুর্বাঘাস গজিয়ে রয়েছে। যে জন্য শহর প্রকল্পের আওতায় রাস্তাগুলো ড্রেনের পানি জমে রাস্তাগুলো ড্যামেজ হয়ে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়ে যাচ্ছে।

প্যানেল মেয়র নাজমুল হক লিমন বলেন, বৃষ্টির আগেই ড্রেনগুলো পরিষ্কার করা জরুরি। প্রতিদিনের পৌর এলাকার ময়লা ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে নদের পানি নষ্ট করে পরিবেশ নষ্ট করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ার বিষয়ে হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিন্দ্য মন্ডল জানান, মেয়রকে প্রতিমাসেই মাসিক সভায় উপস্থিত হওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হলেও তিনি সেখানে উপস্থিত হন না। তিনি যদি আমাদের কাছে ডাম্পিংয়ের বিষয়ে সহায়তা নিতে চান তা হলে আমরা এ বিষয়ে চিঠি লিখে সরকারিভাবে সহায়তা করতে পারি।

পৌর মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকন বলেন, এটি একটি ছোট পৌরসভা। তেমন কোনো আয় না থাকায় এতকিছু করা সম্ভব নয়।

/শিল্পী/