ঢাকা ১২:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

এসিল্যান্ড কনকের চমক 

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৭:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪ ১১৬ বার পড়া হয়েছে

সংগৃহীত

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

AC Land :

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ভূমি অফিসে যোগদানের পর চমক দেখিয়ে আলোচনায় এসেছেন এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক। দূর করেছেন সকল অনিয়ম। তার কঠোর অনুশাসনে ভূমি অফিসের দালালচক্র থেকে মুক্তি পেয়েছেন সেবাগ্রহীতারা। এভাবেই তিনি সাধারণ মানুষের কাছে তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। তাই অল্প সময়েই শক্তভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার নজির স্থাপন করেছেন এই এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক।

ভূমি অফিসে আসা সেবাগ্রহীতারা জানান, তিনি কাজ করেন সকল প্রকার ভয়ভীতির ঊর্ধ্বে উঠে। কারো সাতে-পাঁচে না গিয়ে আড়াইহাজার ভূমি অফিসকে জনবান্ধব অফিস হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে সুধীমহলের প্রশংসা অর্জন করতে পেরেছেন শামসুজ্জাহান কনক।

তিনি ৩৬তম বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মকর্তা। কনকের গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর জেলা সদরের বিনোদপুর ইউনিয়নে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণিবিদ্যা বিভাগে। তার পিতার নাম এম. শামসুল হক। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী এবং মা ফিরোজা আক্তার নিলু গৃহিণী।

জানা গেছে, এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক মিসকেসের ব্যাপারে রায় দেন নির্ভয়ে। তিনি কোনো প্রকার ভয়-ভীতির তোয়াক্কা করেন না। কাগজপত্র ঠিক থাকলে দ্রুত মিসকেস নিষ্পত্তি করেন। এছাড়া কাগজপত্র দেখে সঠিক নামজারি করে দেন। ২০২৩ সালের ১৪ জুন তিনি আড়াইহাজার উপজেলায় যোগদান করেন। তিনি যোগদান করার পর থেকেই আড়াইহাজার ভূমি অফিসে কাজে কর্মে শৃঙ্খলা ফিরে আসে এবং কাজে গতির সঞ্চার হয়।

আড়াইহাজার উপজেলায় দুটি পৌরসভা ১০টি ইউনিয়নের ৩১৬ টি গ্রামের মানুষের আস্থা অর্জন করেছে উপজেলা ভূমি অফিস। আগের চেয়ে পরিচ্ছন্ন ও গোছানো অফিসে কাজও হয় দ্রুতগতিতে।

কনক বলেন, ভূমি অফিসের চালকের আসনে যেহেতু একজন নারী মানে আমি আছি তাই আমি সর্বাত্মক চেষ্টা করি সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে। কোনো প্রকার ভয়-ভীতির তোয়াক্কা করি না। ২০২৩ সালের ১৪ জুন তিনি আড়াইহাজার উপজেলায় যোগদান করেছি। যোগদান করার পর থেকেই আড়াইহাজার ভূমি অফিসে কাজে কর্মে শৃঙ্খলা ফিরে আনতে এবং কাজে গতির সঞ্চার করার চেষ্টা করছি। আমার চেষ্টা জনগণকে আরও উন্নত সেবা পৌছে দেয়া। এজন্য সবার সহযোগিতা আশা করি।

/শিল্পী/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

এসিল্যান্ড কনকের চমক 

আপডেট সময় : ০৭:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪

AC Land :

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ভূমি অফিসে যোগদানের পর চমক দেখিয়ে আলোচনায় এসেছেন এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক। দূর করেছেন সকল অনিয়ম। তার কঠোর অনুশাসনে ভূমি অফিসের দালালচক্র থেকে মুক্তি পেয়েছেন সেবাগ্রহীতারা। এভাবেই তিনি সাধারণ মানুষের কাছে তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। তাই অল্প সময়েই শক্তভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার নজির স্থাপন করেছেন এই এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক।

ভূমি অফিসে আসা সেবাগ্রহীতারা জানান, তিনি কাজ করেন সকল প্রকার ভয়ভীতির ঊর্ধ্বে উঠে। কারো সাতে-পাঁচে না গিয়ে আড়াইহাজার ভূমি অফিসকে জনবান্ধব অফিস হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে সুধীমহলের প্রশংসা অর্জন করতে পেরেছেন শামসুজ্জাহান কনক।

তিনি ৩৬তম বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মকর্তা। কনকের গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর জেলা সদরের বিনোদপুর ইউনিয়নে। পড়াশোনা করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণিবিদ্যা বিভাগে। তার পিতার নাম এম. শামসুল হক। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী এবং মা ফিরোজা আক্তার নিলু গৃহিণী।

জানা গেছে, এসিল্যান্ড শামসুজ্জাহান কনক মিসকেসের ব্যাপারে রায় দেন নির্ভয়ে। তিনি কোনো প্রকার ভয়-ভীতির তোয়াক্কা করেন না। কাগজপত্র ঠিক থাকলে দ্রুত মিসকেস নিষ্পত্তি করেন। এছাড়া কাগজপত্র দেখে সঠিক নামজারি করে দেন। ২০২৩ সালের ১৪ জুন তিনি আড়াইহাজার উপজেলায় যোগদান করেন। তিনি যোগদান করার পর থেকেই আড়াইহাজার ভূমি অফিসে কাজে কর্মে শৃঙ্খলা ফিরে আসে এবং কাজে গতির সঞ্চার হয়।

আড়াইহাজার উপজেলায় দুটি পৌরসভা ১০টি ইউনিয়নের ৩১৬ টি গ্রামের মানুষের আস্থা অর্জন করেছে উপজেলা ভূমি অফিস। আগের চেয়ে পরিচ্ছন্ন ও গোছানো অফিসে কাজও হয় দ্রুতগতিতে।

কনক বলেন, ভূমি অফিসের চালকের আসনে যেহেতু একজন নারী মানে আমি আছি তাই আমি সর্বাত্মক চেষ্টা করি সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে। কোনো প্রকার ভয়-ভীতির তোয়াক্কা করি না। ২০২৩ সালের ১৪ জুন তিনি আড়াইহাজার উপজেলায় যোগদান করেছি। যোগদান করার পর থেকেই আড়াইহাজার ভূমি অফিসে কাজে কর্মে শৃঙ্খলা ফিরে আনতে এবং কাজে গতির সঞ্চার করার চেষ্টা করছি। আমার চেষ্টা জনগণকে আরও উন্নত সেবা পৌছে দেয়া। এজন্য সবার সহযোগিতা আশা করি।

/শিল্পী/