ঢাকা ১১:০৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

উখিয়ায় গ্রেনেডে আহত যুবকের মৃত্যু

কক্সবাজার প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৫:২২:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪ ১১৫ বার পড়া হয়েছে

সংগৃহীত

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

injuries in Ukhia :

উখিয়ায় গুলিতে আহত বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু হয়েছে। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সংঘাতের জের ধরে কক্সবাজারের উখিয়া সীমান্তে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারীর ছুড়ে মারা হ্যান্ডগ্রেনেডের আঘাতে আহত হওয়া আনোয়ার সালাম মোবারক (৩২) নামের এক যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. আশিকুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

নিহত আনোয়ার উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ রহমতের বিল এলাকার আবদুস সালামের ছেলে।

পালংখালী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আলতাজ আহমদ বলেন, ‘গত ৭ ফেব্রুয়ারি আনোয়ার সীমান্তবর্তী জমিতে কাজ করছিলেন। এসময় তিনি মিয়ানমার থেকে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারী এক যুবককে দেখতে পেয়ে আটকানোর চেষ্টা করেন। অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারী লোকটির হাতে থাকা একটি গ্রেনেড তিনি আনোয়ারকে লক্ষ্য করে ছুড়ে মারেন। এতে আনোয়ার গুরুতর আহত হন।

খবর পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় আনোয়ারকে।

স্থানীয় এইউপি সদস্য বলেন, হাসপাতালে আনোয়ারের শারীরিক অবস্থা কিছুটা উন্নত হলে পরে আবারও তাকে আনা হয় কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে। দীর্ঘ একমাস চিকিৎসাধিন অবস্থায় থাকার পর বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তার মৃত্যু হয়।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শামীম হোসেন জানান, বিষয়টি এখনও পর্যন্ত পুলিশকে জানানো হয়নি। খোঁজ খবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

উখিয়া থানা-পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে টানা এক মাসের বেশি সময় ধরে দেশটির সরকারি বাহিনীর সঙ্গে স্বাধীনতাকামী বিদ্রোহী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির মধ্যে উত্তেজনা ও সহিংসতা চলে আসছে। প্রায়ই সেখানে গোলাগুলির পাশাপাশি শক্তিশালী গ্রেনেড বোমা ও মর্টার শেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে। সংঘাতের জেরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী, বিজিপি, সরকারি কর্মচারীসহ অন্তত ৩৩০ জন নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছিলেন।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমার বাহিনীর সঙ্গে অনুপ্রবেশের সময় পালংখালীর রহমতের বিল সীমান্ত থেকে অস্ত্রসহ ২৩ জন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করে বিজিবি। পরে বিজিবির পক্ষ থেকে গ্রেপ্তার রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় অনুপ্রবেশ ও অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়। ২৩ রোহিঙ্গা এখন কক্সবাজার জেলা কারাগারে বন্দী আছেন।

/শিল্পী/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

উখিয়ায় গ্রেনেডে আহত যুবকের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৫:২২:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪

injuries in Ukhia :

উখিয়ায় গুলিতে আহত বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু হয়েছে। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সংঘাতের জের ধরে কক্সবাজারের উখিয়া সীমান্তে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারীর ছুড়ে মারা হ্যান্ডগ্রেনেডের আঘাতে আহত হওয়া আনোয়ার সালাম মোবারক (৩২) নামের এক যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. আশিকুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

নিহত আনোয়ার উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ রহমতের বিল এলাকার আবদুস সালামের ছেলে।

পালংখালী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আলতাজ আহমদ বলেন, ‘গত ৭ ফেব্রুয়ারি আনোয়ার সীমান্তবর্তী জমিতে কাজ করছিলেন। এসময় তিনি মিয়ানমার থেকে অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারী এক যুবককে দেখতে পেয়ে আটকানোর চেষ্টা করেন। অনুপ্রবেশের চেষ্টাকারী লোকটির হাতে থাকা একটি গ্রেনেড তিনি আনোয়ারকে লক্ষ্য করে ছুড়ে মারেন। এতে আনোয়ার গুরুতর আহত হন।

খবর পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় আনোয়ারকে।

স্থানীয় এইউপি সদস্য বলেন, হাসপাতালে আনোয়ারের শারীরিক অবস্থা কিছুটা উন্নত হলে পরে আবারও তাকে আনা হয় কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে। দীর্ঘ একমাস চিকিৎসাধিন অবস্থায় থাকার পর বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তার মৃত্যু হয়।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শামীম হোসেন জানান, বিষয়টি এখনও পর্যন্ত পুলিশকে জানানো হয়নি। খোঁজ খবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

উখিয়া থানা-পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে টানা এক মাসের বেশি সময় ধরে দেশটির সরকারি বাহিনীর সঙ্গে স্বাধীনতাকামী বিদ্রোহী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মির মধ্যে উত্তেজনা ও সহিংসতা চলে আসছে। প্রায়ই সেখানে গোলাগুলির পাশাপাশি শক্তিশালী গ্রেনেড বোমা ও মর্টার শেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে। সংঘাতের জেরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী, বিজিপি, সরকারি কর্মচারীসহ অন্তত ৩৩০ জন নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছিলেন।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমার বাহিনীর সঙ্গে অনুপ্রবেশের সময় পালংখালীর রহমতের বিল সীমান্ত থেকে অস্ত্রসহ ২৩ জন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করে বিজিবি। পরে বিজিবির পক্ষ থেকে গ্রেপ্তার রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় অনুপ্রবেশ ও অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়। ২৩ রোহিঙ্গা এখন কক্সবাজার জেলা কারাগারে বন্দী আছেন।

/শিল্পী/