ঢাকা ১২:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

জেনেভায় শ্রম বিষয়ে আইএলও’র ৩৫০তম গভর্নিং বডির অধিবেশন

বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা ১৫ দেশের, অসন্তোষ ৩ দেশের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৭:০২:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪ ১০৬ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ফটো

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
Session of the ILO :

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থায় (আইএলও) ৩৫০তম গভর্নিং বডির বাংলাদেশ বিষয়ক অধিবেশনে চীন, ভারত, পাকিস্তানসহ মোট ১৫টি দেশ শ্রম বিষয়ে বাংলাদেশের চলমান বিভিন্ন সংস্কার ও কর্ম উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। অন্যদিকে ৩ টি দেশ-যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও আর্জেন্টিনা অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থায় (আইএলও) ৩৫০তম গভর্নিং বডির বাংলাদেশ বিষয়ক অধিবেশনে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বক্তব্য রাখেন এবং অন্যদেশগুলোও তাদের নিজেদের বক্তব্যে বাংলাদেশের প্রশংসা করেন।

আইএলও’তে বাংলাদেশ কেস সমাপ্তিরও অনুরোধ জানান তারা। মোট ২৫টি দেশ বাংলাদেশের বিষয়ে বক্তব্য প্রদান করেছে।

আজ বুধবার (১৩ মার্চ) আইন মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একটি বেসরকারি টেলিভিশন আইএলও’র এই অধিবেশনের বিষয়ে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ করেছে। তবে ওই সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই। আইন মন্ত্রণালয় জানায়, অধিবেশনে অংশ নেওয়া সাতটি দেশ বাংলাদেশের গৃহীত কার্যক্রম পর্যাপ্ত নয় মর্মে অসন্তোষ প্রকাশ করলেও বাংলাদেশকে আরও সময় প্রদানের সুপারিশ করেন। অন্যদিকে তিনটি দেশ-যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও আর্জেন্টিনা শ্রম বিষয়ে বাংলাদেশের উদ্যোগের ঘাটতি রয়েছে বলে বক্তব্য প্রদান করেন।

এদিকে, অধিবেশনে আইনমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, বৈশ্বিক মন্দা ও নানামুখী চ্যালেঞ্জ থাকা স্বত্বেও সরকার শ্রমবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এবং শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণে প্রয়োজনীয় শ্রম সম্পর্ক তৈরির জন্য সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করে চলেছে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণের স্বপ্নের আলোকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার শ্রমক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিয়ে চলেছে।

বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবন ও জীবিকার উন্নয়নে সরকার কর্তৃক গৃহীত রোড ম্যাপ (২০২১-২৬) এর আলোকে আইনগত সংস্কার, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন, শ্রম সংক্রান্ত পরিদর্শন এবং শ্রমিকদের অন্যান্য অধিকার-এ চারটি ক্ষেত্রে শ্রম সংস্থার অধিবেশনে বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন আইনমন্ত্রী।

প্রস্তাবিত বাংলাদেশ শ্রম আইন সংশোধন বিলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের জন্য শিল্পখাতে প্রয়োজনীয় শ্রমিক সংখ্যা ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে আনা, ইউনিয়নের প্রতি অনায্য আচরণের শাস্তি দ্বিগুণ করা, বেআইনিভাবে কারখানা বন্ধ করার শাস্তি তিনগুণ করা, শিশু শ্রমের শাস্তি চারগুণ করার বিধান রাখার কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

তাছাড়া প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে বেসামরিক বিমান পরিবহন খাতে এবং নৌ পরিবহন খাতে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন ও পরিচালনা সহজীকরণ, শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের রায়ে আপিল আবেদন সহজীকরণ সংক্রান্ত বিধান সংযুক্ত করার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার বিভিন্ন কনভেনশনের অধিকতর প্রতিফলন ঘটানো হয়েছে বলে তিনি অধিবেশনকে অবহিত করেন। যথাযথ ত্রিপক্ষীয় আলোচনা শেষে দ্রুততার সাথে সম্ভব হলে, জাতীয় সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে শ্রম আইনের সংশোধন বিল আকারে উপস্থাপিত হতে পারে বলে মন্ত্রী জানান।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভা সফররত আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মহাপরিচালক গিলবার্ট হোংবোর সাথে এক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে মন্ত্রী বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবনমান উন্নয়নে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরেন এবং এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার সহযোগিতা ও অংশীদারিত্ব অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান।

মহাপরিচালক হোংবো সরকারের সদিচ্ছা ও গৃহীত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। আইনমন্ত্রীর আমন্ত্রণের প্রেক্ষিতে মহাপরিচালক ২০২৪ সালের মধ্যে বাংলাদেশ সফরের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন।

এম.নাসির/১৩

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

জেনেভায় শ্রম বিষয়ে আইএলও’র ৩৫০তম গভর্নিং বডির অধিবেশন

বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা ১৫ দেশের, অসন্তোষ ৩ দেশের

আপডেট সময় : ০৭:০২:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪
Session of the ILO :

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থায় (আইএলও) ৩৫০তম গভর্নিং বডির বাংলাদেশ বিষয়ক অধিবেশনে চীন, ভারত, পাকিস্তানসহ মোট ১৫টি দেশ শ্রম বিষয়ে বাংলাদেশের চলমান বিভিন্ন সংস্কার ও কর্ম উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। অন্যদিকে ৩ টি দেশ-যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও আর্জেন্টিনা অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থায় (আইএলও) ৩৫০তম গভর্নিং বডির বাংলাদেশ বিষয়ক অধিবেশনে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বক্তব্য রাখেন এবং অন্যদেশগুলোও তাদের নিজেদের বক্তব্যে বাংলাদেশের প্রশংসা করেন।

আইএলও’তে বাংলাদেশ কেস সমাপ্তিরও অনুরোধ জানান তারা। মোট ২৫টি দেশ বাংলাদেশের বিষয়ে বক্তব্য প্রদান করেছে।

আজ বুধবার (১৩ মার্চ) আইন মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একটি বেসরকারি টেলিভিশন আইএলও’র এই অধিবেশনের বিষয়ে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ করেছে। তবে ওই সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই। আইন মন্ত্রণালয় জানায়, অধিবেশনে অংশ নেওয়া সাতটি দেশ বাংলাদেশের গৃহীত কার্যক্রম পর্যাপ্ত নয় মর্মে অসন্তোষ প্রকাশ করলেও বাংলাদেশকে আরও সময় প্রদানের সুপারিশ করেন। অন্যদিকে তিনটি দেশ-যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও আর্জেন্টিনা শ্রম বিষয়ে বাংলাদেশের উদ্যোগের ঘাটতি রয়েছে বলে বক্তব্য প্রদান করেন।

এদিকে, অধিবেশনে আইনমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, বৈশ্বিক মন্দা ও নানামুখী চ্যালেঞ্জ থাকা স্বত্বেও সরকার শ্রমবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এবং শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণে প্রয়োজনীয় শ্রম সম্পর্ক তৈরির জন্য সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করে চলেছে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণের স্বপ্নের আলোকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার শ্রমক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিয়ে চলেছে।

বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবন ও জীবিকার উন্নয়নে সরকার কর্তৃক গৃহীত রোড ম্যাপ (২০২১-২৬) এর আলোকে আইনগত সংস্কার, ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন, শ্রম সংক্রান্ত পরিদর্শন এবং শ্রমিকদের অন্যান্য অধিকার-এ চারটি ক্ষেত্রে শ্রম সংস্থার অধিবেশনে বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন আইনমন্ত্রী।

প্রস্তাবিত বাংলাদেশ শ্রম আইন সংশোধন বিলে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের জন্য শিল্পখাতে প্রয়োজনীয় শ্রমিক সংখ্যা ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে আনা, ইউনিয়নের প্রতি অনায্য আচরণের শাস্তি দ্বিগুণ করা, বেআইনিভাবে কারখানা বন্ধ করার শাস্তি তিনগুণ করা, শিশু শ্রমের শাস্তি চারগুণ করার বিধান রাখার কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

তাছাড়া প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে বেসামরিক বিমান পরিবহন খাতে এবং নৌ পরিবহন খাতে ট্রেড ইউনিয়ন গঠন ও পরিচালনা সহজীকরণ, শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের রায়ে আপিল আবেদন সহজীকরণ সংক্রান্ত বিধান সংযুক্ত করার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

প্রস্তাবিত এ সংশোধনীটিতে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার বিভিন্ন কনভেনশনের অধিকতর প্রতিফলন ঘটানো হয়েছে বলে তিনি অধিবেশনকে অবহিত করেন। যথাযথ ত্রিপক্ষীয় আলোচনা শেষে দ্রুততার সাথে সম্ভব হলে, জাতীয় সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে শ্রম আইনের সংশোধন বিল আকারে উপস্থাপিত হতে পারে বলে মন্ত্রী জানান।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভা সফররত আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মহাপরিচালক গিলবার্ট হোংবোর সাথে এক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে মন্ত্রী বাংলাদেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবনমান উন্নয়নে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরেন এবং এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার সহযোগিতা ও অংশীদারিত্ব অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান।

মহাপরিচালক হোংবো সরকারের সদিচ্ছা ও গৃহীত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। আইনমন্ত্রীর আমন্ত্রণের প্রেক্ষিতে মহাপরিচালক ২০২৪ সালের মধ্যে বাংলাদেশ সফরের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন।

এম.নাসির/১৩