ঢাকা ০১:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

পোস্তগোলা সেতু দিয়ে ধীরগতিতে যান চলাচল শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১০:০১:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪ ১০৩ বার পড়া হয়েছে

সংগৃহীত

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Postogola Setu :

সংস্কার কাজ শেষে রাজধানীর পোস্তগোলা সেতুতে ধীরগতিতে যান চলাচল শুরু হয়েছে। এরমধ্যে দিয়ে ১৬ দিনের যানজটের ভোগান্তি শেষে পরিবহনচালক, যাত্রী ও জনসাধারণের মধ্যে স্বস্তি এসেছে ।

তবে শনিবার (৯ মার্চ) পুরো সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়নি । ক্ষতিগ্রস্ত অংশে ব্যারিকেড দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। সে অংশে ধীরগতিতে চলছে যানবাহন।

প্রায় পৌনে চার বছর পর শুরু হয়েছিল ঝুঁকিপূর্ণ বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু-১ (পোস্তগোলা সেতু) এর মেরামত ও রেট্রোফিটিংয়ের কাজ। গত ২২ ফেব্রুয়ারি সেতুটির সংস্কার কাজ শুরু করে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর। শেষ হয় শুক্রবার (৮ মার্চ)। ফলে ১৬ দিন পর শুক্রবার মধ্যরাত থেকেই সব ধরনের যান চলাচলের জন্য এটি খুলে দেওয়া হয়।

সরেজমিনে সেতুটির ওপরে দেখা যায়, সেতুর উভয় পাশে ক্ষতিগ্রস্ত অংশের প্রায় ১৫০ মিটার ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। ফলে সেতুটি সরু হয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল করছে ধীর গতিতে। এমনকি যানজটও সৃষ্টি হচ্ছে। ট্রাক চালক হামিদ বলেন, দীর্ঘ ১৬ দিন সেতুটি বন্ধ থাকায় আমাদের এক ট্রিপ মারতেই দিন পার হয়ে গেছে। পড়তে হতো চরম ভোগান্তিতে। আজ কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে।

সড়ক ও জনপথের এক্সপ্রেস হাইওয়ের পেট্রোল অফিসার আনিসুল হক দুলাল বলেন, শুক্রবার রাতে সংস্কার কাজ শেষ হয়েছে। এখনো ঢালাইগুলো কাঁচা রয়েছে। ফলে দ্রুতগতির ভারী যান চলাচল করলে সেটার ক্ষতি হতে পারে। তাই ব্যারিকেড দিয়ে যানবাহনগুলোকে ২০ কিলোমিটার বেগে চলাচলের জন্য সতর্ক করছি। আগামী ১৫ মার্চ পর্যন্ত এভাবেই চলবে।

সওজের মুন্সিগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আবুল কাশেম বলেন, আমাদের কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে। শুক্রবার কাজ শেষে আমরা এটি ভালোভাবে পরীক্ষা করেছি। ফলে ভারীসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচলে সমস্যা হবে না। তবে ঢালাই করা অংশটুকু শক্ত হতে আরও ১৫ দিন সময় লাগবে। ফলে এ কয়েকদিন ক্ষতিগ্রস্ত অংশে দ্রুতগতিতে যান চলাচল করতে পারবে না।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ২৯ জুন ঢাকার সদরঘাটে ময়ূরী-২ নামের একটি বড় লঞ্চের ধাক্কায় ‘মর্নিং বার্ড’ নামের ছোট আরেকটি লঞ্চ শতাধিক যাত্রী নিয়ে বুড়িগঙ্গায় ডুবে যায়। এ ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধারে আসা উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের ধাক্কায় পোস্তগোলা সেতুটির দুটি গার্ডার ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সেতুটির সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় ২২ ফেব্রুয়ারি হতে ৮ মার্চ পর্যন্ত সেতুর ওপর দিয়ে ভারী যানবাহন এবং হালকা যানবাহন ৫ দিন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়।

/শিল্পী/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

পোস্তগোলা সেতু দিয়ে ধীরগতিতে যান চলাচল শুরু

আপডেট সময় : ১০:০১:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪

Postogola Setu :

সংস্কার কাজ শেষে রাজধানীর পোস্তগোলা সেতুতে ধীরগতিতে যান চলাচল শুরু হয়েছে। এরমধ্যে দিয়ে ১৬ দিনের যানজটের ভোগান্তি শেষে পরিবহনচালক, যাত্রী ও জনসাধারণের মধ্যে স্বস্তি এসেছে ।

তবে শনিবার (৯ মার্চ) পুরো সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়নি । ক্ষতিগ্রস্ত অংশে ব্যারিকেড দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। সে অংশে ধীরগতিতে চলছে যানবাহন।

প্রায় পৌনে চার বছর পর শুরু হয়েছিল ঝুঁকিপূর্ণ বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু-১ (পোস্তগোলা সেতু) এর মেরামত ও রেট্রোফিটিংয়ের কাজ। গত ২২ ফেব্রুয়ারি সেতুটির সংস্কার কাজ শুরু করে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর। শেষ হয় শুক্রবার (৮ মার্চ)। ফলে ১৬ দিন পর শুক্রবার মধ্যরাত থেকেই সব ধরনের যান চলাচলের জন্য এটি খুলে দেওয়া হয়।

সরেজমিনে সেতুটির ওপরে দেখা যায়, সেতুর উভয় পাশে ক্ষতিগ্রস্ত অংশের প্রায় ১৫০ মিটার ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। ফলে সেতুটি সরু হয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল করছে ধীর গতিতে। এমনকি যানজটও সৃষ্টি হচ্ছে। ট্রাক চালক হামিদ বলেন, দীর্ঘ ১৬ দিন সেতুটি বন্ধ থাকায় আমাদের এক ট্রিপ মারতেই দিন পার হয়ে গেছে। পড়তে হতো চরম ভোগান্তিতে। আজ কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে।

সড়ক ও জনপথের এক্সপ্রেস হাইওয়ের পেট্রোল অফিসার আনিসুল হক দুলাল বলেন, শুক্রবার রাতে সংস্কার কাজ শেষ হয়েছে। এখনো ঢালাইগুলো কাঁচা রয়েছে। ফলে দ্রুতগতির ভারী যান চলাচল করলে সেটার ক্ষতি হতে পারে। তাই ব্যারিকেড দিয়ে যানবাহনগুলোকে ২০ কিলোমিটার বেগে চলাচলের জন্য সতর্ক করছি। আগামী ১৫ মার্চ পর্যন্ত এভাবেই চলবে।

সওজের মুন্সিগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আবুল কাশেম বলেন, আমাদের কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে। শুক্রবার কাজ শেষে আমরা এটি ভালোভাবে পরীক্ষা করেছি। ফলে ভারীসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচলে সমস্যা হবে না। তবে ঢালাই করা অংশটুকু শক্ত হতে আরও ১৫ দিন সময় লাগবে। ফলে এ কয়েকদিন ক্ষতিগ্রস্ত অংশে দ্রুতগতিতে যান চলাচল করতে পারবে না।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ২৯ জুন ঢাকার সদরঘাটে ময়ূরী-২ নামের একটি বড় লঞ্চের ধাক্কায় ‘মর্নিং বার্ড’ নামের ছোট আরেকটি লঞ্চ শতাধিক যাত্রী নিয়ে বুড়িগঙ্গায় ডুবে যায়। এ ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধারে আসা উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের ধাক্কায় পোস্তগোলা সেতুটির দুটি গার্ডার ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সেতুটির সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় ২২ ফেব্রুয়ারি হতে ৮ মার্চ পর্যন্ত সেতুর ওপর দিয়ে ভারী যানবাহন এবং হালকা যানবাহন ৫ দিন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়।

/শিল্পী/