ঢাকা ১১:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২১.১৫ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৫:২৫:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪ ৮২ বার পড়া হয়েছে

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২১.১৫ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Foreign Currency: ক্রমহ্রাসমান বৈদেশিক মুদ্রার দরপতন ঠেকাতে দুই মাস আগেও সরাসরি বৈদেশিক ঋণ-মুদ্রা সহায়তা নিতে হয়েছে। অভ্যন্তরীণ কারেন্সি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম অদলবদল এবং প্রবাসী আয়ের প্রভাবে মার্চের শুরুতে রিজার্ভ ২১ বিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (০৭ মার্চ) বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

বাংলাদেশে সর্বশেষ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ২১.১৫ বিলিয়ন বা ২,১১৫, ২৬৮,০০০ মার্কিন ডলার। এক মাস আগে এই রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৯৯৫ কোটি ৬০ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার (বিপিএম-৬)। এক মাসে রিজার্ভ বেড়েছে ১ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার বা ১১৯ কোটি ৬৬ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার।

মার্চের শুরুতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বা গ্রস রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৬.৩৩ বিলিয়ন ডলার বা ২,৬৩৩ মিলিয়ন ৯৪,৮০০,০০০ মার্কিন ডলার। এক মাস আগে তা ছিল ২৫ দশমিক ০৮ বিলিয়ন ডলার বা দুই হাজার ৫০৮ মিলিয়ন ৯৯৬০ হাজার মার্কিন ডলার।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণ, বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ বা আমদানিতে লাগাম ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার স্থিতিশীলতা বজায় রাখা সম্ভব নয়, যাতে বিগত এক বছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ হ্রাস পেতে পারে। মার্চের শুরুতে, আইএমএফ ঋণ বা অন্যান্য বাহ্যিক ঋণ ছাড়াই প্রবাসী আয় এবং ব্যাংকগুলির মধ্যে মুদ্রা বিনিময়ের মাধ্যমে মুদ্রা 21 বিলিয়ন ছাড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছিল।

ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসীদের বৈদেশিক মুদ্রা আয় স্থানীয় মুদ্রায় তাদের পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। বৈদেশিক মুদ্রা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে সংরক্ষণ করা হয়। যার একটি অংশ বিক্রি হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে। এটি রিজার্ভ বাড়ানোর একটি মাধ্যম।

অদলবদল হল ব্যাঙ্কের নস্ট্রো অ্যাকাউন্ট (বিদেশে দেশীয় ব্যাঙ্কগুলির অ্যাকাউন্ট) থেকে ডলারের বিনিময়, যা স্বল্প মেয়াদে লেনদেন করা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংক অদলবদলের মাধ্যমে গ্রস রিজার্ভ বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। এর মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা সামগ্রিকভাবে বাড়ে না, বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চলে যায়। প্রয়োজনে ব্যাঙ্কগুলি ফেরত নেয়।

আরকে/৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২১.১৫ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে

আপডেট সময় : ০৫:২৫:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪

Foreign Currency: ক্রমহ্রাসমান বৈদেশিক মুদ্রার দরপতন ঠেকাতে দুই মাস আগেও সরাসরি বৈদেশিক ঋণ-মুদ্রা সহায়তা নিতে হয়েছে। অভ্যন্তরীণ কারেন্সি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম অদলবদল এবং প্রবাসী আয়ের প্রভাবে মার্চের শুরুতে রিজার্ভ ২১ বিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (০৭ মার্চ) বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

বাংলাদেশে সর্বশেষ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ২১.১৫ বিলিয়ন বা ২,১১৫, ২৬৮,০০০ মার্কিন ডলার। এক মাস আগে এই রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৯৯৫ কোটি ৬০ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার (বিপিএম-৬)। এক মাসে রিজার্ভ বেড়েছে ১ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার বা ১১৯ কোটি ৬৬ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার।

মার্চের শুরুতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বা গ্রস রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৬.৩৩ বিলিয়ন ডলার বা ২,৬৩৩ মিলিয়ন ৯৪,৮০০,০০০ মার্কিন ডলার। এক মাস আগে তা ছিল ২৫ দশমিক ০৮ বিলিয়ন ডলার বা দুই হাজার ৫০৮ মিলিয়ন ৯৯৬০ হাজার মার্কিন ডলার।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণ, বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ বা আমদানিতে লাগাম ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার স্থিতিশীলতা বজায় রাখা সম্ভব নয়, যাতে বিগত এক বছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ হ্রাস পেতে পারে। মার্চের শুরুতে, আইএমএফ ঋণ বা অন্যান্য বাহ্যিক ঋণ ছাড়াই প্রবাসী আয় এবং ব্যাংকগুলির মধ্যে মুদ্রা বিনিময়ের মাধ্যমে মুদ্রা 21 বিলিয়ন ছাড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছিল।

ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসীদের বৈদেশিক মুদ্রা আয় স্থানীয় মুদ্রায় তাদের পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়। বৈদেশিক মুদ্রা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে সংরক্ষণ করা হয়। যার একটি অংশ বিক্রি হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে। এটি রিজার্ভ বাড়ানোর একটি মাধ্যম।

অদলবদল হল ব্যাঙ্কের নস্ট্রো অ্যাকাউন্ট (বিদেশে দেশীয় ব্যাঙ্কগুলির অ্যাকাউন্ট) থেকে ডলারের বিনিময়, যা স্বল্প মেয়াদে লেনদেন করা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংক অদলবদলের মাধ্যমে গ্রস রিজার্ভ বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। এর মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা সামগ্রিকভাবে বাড়ে না, বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চলে যায়। প্রয়োজনে ব্যাঙ্কগুলি ফেরত নেয়।

আরকে/৮