ঢাকা ১০:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

বার নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে অনিশ্চয়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৩:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪ ৮০ বার পড়া হয়েছে

বার নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে অনিশ্চয়তা

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Supreme Court: সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের ২০২৪-২৫ সালের দুই দিনের নির্বাচনে ভোট গণনা নিয়ে হট্টগোল এবং হাতাহাতি দেখা গেছে। এ ঘটনায় আইনজীবীদের মধ্যে ভীতিজনক অবস্থা বিরাজ করছে। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

কয়েকজন আইনজীবী নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদ কর্মীদের জানান, বিকেল ৩টার দিকে ভোটগ্রহণ শেষ হয়। স্বতন্ত্র প্যানেল থেকে সম্পাদক প্রার্থী নাহিদ সুলতানা যূথী ও বিএনপি প্যানেলের প্রার্থীরা রাতেই ভোট গণনার পক্ষে বক্তব্য দেন। তারা নির্বাচন কমিশনকে ভোট গণনা ও ফলাফল ঘোষণা করতে বলেন। তবে আজ শুক্রবার বিকেল ৩টায় দিবালোকে ভোট গণনা করতে চান আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্পাদক প্রার্থী শাহ মঞ্জুরুল হক। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়। এদিন ভোরেও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহত হয়েছেন কয়েকজন আইনজীবী। সেখানে একজন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলকে মারধর করা হয়। তার একটি ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। হামলার প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবীরা বলেছেন, হামলাটি বহিরাগতরা করেছে।

তারা আরও জানান, নির্বাচন কমিশনের প্রধান অ্যাডভোকেট আবুল খায়ের স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথিকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ভোট গণনার সময় অন্য কোনো সম্পাদক প্রার্থী উপস্থিত না থাকায় সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথীকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সুপ্রিম কোর্টে এসে বহিরাগতদের বের করে এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে ব্যালট বাক্সগুলো পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

ফল ঘোষণার বিষয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের সম্পাদক প্রার্থী শাহ মঞ্জুরুল হক বলেন, ভোট গণনা হয়নি। সকাল ৮টার পর আমি পুলিশি পাহারায় সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে বের হয়ে বাসায় যাই। সার্বিক বিষয়ে আমাদের নেতারা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের সম্পাদক প্রার্থী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল শুক্রবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, “নির্বাচনের পর আমরা নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ফলাফলের অপেক্ষায় ছিলাম। আমরা এখনো ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছি। এখন ব্যালট বাক্সও খুঁজে পাচ্ছি না, নির্বাচন কমিশনও খুঁজে পাচ্ছি না”।

আজ সকালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে পুলিশ পাহারায় ব্যালট বাক্স দেখা যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েকজন সদস্য ছাড়া কোনো দলের প্রার্থী ও সমর্থককে এ মাঠে দেখা যায়নি। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বে থাকা কাউকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

গতকাল সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২৪-২৫ সালের দুই দিনব্যাপী ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। দুই দিনে ৭ হাজার ৮৮৩ আইনজীবীর মধ্যে ৫ হাজার ৩১৯ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

দ্বিতীয় দিনের ভোটগ্রহণ গতকাল সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে। এই দিনে ২০৫৮ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। আর প্রথম দিনে ৩২৬১ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে আবু সাঈদ সাগর, সম্পাদক পদে শাহ মঞ্জুরুল হক, দুই সহসভাপতি পদে রমজান আলী শিকদার ও দেওয়ান মোহাম্মদ আবু ওবায়েদ হোসেন সেতু, কোষাধ্যক্ষ পদে মোহাম্মদ নুরুল হুদা আনসারী। , দুই সহ-সম্পাদক পদে হুমায়ুন কবির ও হুমায়ুন কবির। হুমায়ুন কবির পল্লব। সাত সদস্য পদে সৌমিত্র সরদার রনি, মোঃ খালেকুজ্জামান ভূঁইয়া, রাশেদুল হক খোকন, মাহমুদা আফরোজ, বেলাল হোসেন শাহীন, খালেদ মোশাররফ রিপন, রায়হান রনি।

বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে মনোনীত প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও সম্পাদক পদে মো. রুহুল কুদ্দুস (কাজল), দুই সহ-সভাপতি মো. হুমায়ুন কবির মঞ্জু ও সরকার তাহমিনা বেগম সন্ধ্যা, কোষাধ্যক্ষ মো. রেজাউল করিম, দুই সহ-সম্পাদক পদে মাহফুজুর রহমান মিলন ও মোঃ আব্দুল করিম ফাতেমা আক্তার, সৈয়দ ফজলে এলাহী অভি, সাত সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, মোঃ রাসেল আহমেদ, মোঃ আশিকুজ্জামান নজরুল, মহিউদ্দিন হানিফ, ও মোঃ ইব্রাহিম খলিল।

এই দুই প্যানেলের বাইরে সভাপতি পদে ইউনুস আলী আকন্দ ও সাবেক অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমান।

এছাড়া সাদা ও নীল প্যানেলের বাইরে সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথি ও ফরহাদ উদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া। কোষাধ্যক্ষ পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম।

আরকে/৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বার নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে অনিশ্চয়তা

আপডেট সময় : ০৩:৪৩:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ মার্চ ২০২৪

Supreme Court: সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের ২০২৪-২৫ সালের দুই দিনের নির্বাচনে ভোট গণনা নিয়ে হট্টগোল এবং হাতাহাতি দেখা গেছে। এ ঘটনায় আইনজীবীদের মধ্যে ভীতিজনক অবস্থা বিরাজ করছে। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

কয়েকজন আইনজীবী নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদ কর্মীদের জানান, বিকেল ৩টার দিকে ভোটগ্রহণ শেষ হয়। স্বতন্ত্র প্যানেল থেকে সম্পাদক প্রার্থী নাহিদ সুলতানা যূথী ও বিএনপি প্যানেলের প্রার্থীরা রাতেই ভোট গণনার পক্ষে বক্তব্য দেন। তারা নির্বাচন কমিশনকে ভোট গণনা ও ফলাফল ঘোষণা করতে বলেন। তবে আজ শুক্রবার বিকেল ৩টায় দিবালোকে ভোট গণনা করতে চান আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্পাদক প্রার্থী শাহ মঞ্জুরুল হক। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শুরু হয়। এদিন ভোরেও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহত হয়েছেন কয়েকজন আইনজীবী। সেখানে একজন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেলকে মারধর করা হয়। তার একটি ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। হামলার প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবীরা বলেছেন, হামলাটি বহিরাগতরা করেছে।

তারা আরও জানান, নির্বাচন কমিশনের প্রধান অ্যাডভোকেট আবুল খায়ের স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথিকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ভোট গণনার সময় অন্য কোনো সম্পাদক প্রার্থী উপস্থিত না থাকায় সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথীকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সুপ্রিম কোর্টে এসে বহিরাগতদের বের করে এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে ব্যালট বাক্সগুলো পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

ফল ঘোষণার বিষয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের সম্পাদক প্রার্থী শাহ মঞ্জুরুল হক বলেন, ভোট গণনা হয়নি। সকাল ৮টার পর আমি পুলিশি পাহারায় সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে বের হয়ে বাসায় যাই। সার্বিক বিষয়ে আমাদের নেতারা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের সম্পাদক প্রার্থী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল শুক্রবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, “নির্বাচনের পর আমরা নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ফলাফলের অপেক্ষায় ছিলাম। আমরা এখনো ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছি। এখন ব্যালট বাক্সও খুঁজে পাচ্ছি না, নির্বাচন কমিশনও খুঁজে পাচ্ছি না”।

আজ সকালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে পুলিশ পাহারায় ব্যালট বাক্স দেখা যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েকজন সদস্য ছাড়া কোনো দলের প্রার্থী ও সমর্থককে এ মাঠে দেখা যায়নি। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বে থাকা কাউকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

গতকাল সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২৪-২৫ সালের দুই দিনব্যাপী ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। দুই দিনে ৭ হাজার ৮৮৩ আইনজীবীর মধ্যে ৫ হাজার ৩১৯ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

দ্বিতীয় দিনের ভোটগ্রহণ গতকাল সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে। এই দিনে ২০৫৮ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। আর প্রথম দিনে ৩২৬১ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে আবু সাঈদ সাগর, সম্পাদক পদে শাহ মঞ্জুরুল হক, দুই সহসভাপতি পদে রমজান আলী শিকদার ও দেওয়ান মোহাম্মদ আবু ওবায়েদ হোসেন সেতু, কোষাধ্যক্ষ পদে মোহাম্মদ নুরুল হুদা আনসারী। , দুই সহ-সম্পাদক পদে হুমায়ুন কবির ও হুমায়ুন কবির। হুমায়ুন কবির পল্লব। সাত সদস্য পদে সৌমিত্র সরদার রনি, মোঃ খালেকুজ্জামান ভূঁইয়া, রাশেদুল হক খোকন, মাহমুদা আফরোজ, বেলাল হোসেন শাহীন, খালেদ মোশাররফ রিপন, রায়হান রনি।

বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে মনোনীত প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও সম্পাদক পদে মো. রুহুল কুদ্দুস (কাজল), দুই সহ-সভাপতি মো. হুমায়ুন কবির মঞ্জু ও সরকার তাহমিনা বেগম সন্ধ্যা, কোষাধ্যক্ষ মো. রেজাউল করিম, দুই সহ-সম্পাদক পদে মাহফুজুর রহমান মিলন ও মোঃ আব্দুল করিম ফাতেমা আক্তার, সৈয়দ ফজলে এলাহী অভি, সাত সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, মোঃ রাসেল আহমেদ, মোঃ আশিকুজ্জামান নজরুল, মহিউদ্দিন হানিফ, ও মোঃ ইব্রাহিম খলিল।

এই দুই প্যানেলের বাইরে সভাপতি পদে ইউনুস আলী আকন্দ ও সাবেক অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমান।

এছাড়া সাদা ও নীল প্যানেলের বাইরে সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথি ও ফরহাদ উদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া। কোষাধ্যক্ষ পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম।

আরকে/৮