ঢাকা ০৭:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

গুলি ও মর্টার শেলের শব্দে জেগে ওঠে টেকনাফ সীমান্তের মানুষ

ডেস্ক প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১১:৪৩:২৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪ ১৩৯ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ফটো

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Rakhine Border : কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইকং সীমান্তে গুলি ও মর্টার শেলের শব্দে ঘুম ভেঙে গেছে। শুক্রবার (৮ মার্চ) মধ্যরাত থেকে মিয়ানমারের রাখাইনে সীমান্ত জুড়ে রাতভর গোলাবর্ষণ অব্যাহত রয়েছে। ফলে ওয়াইকং ইউনিয়নের লংবিল ও উনচিপ্রাং এলাকায় বসবাসকারী মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্থানীয়রা জানান, কয়েকদিন ধরেই গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। মিয়ানমারের রাখাইনে চলমান সহিংসতায় নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত আরাকান আর্মি। টেকনাফের হোয়াইকং উত্তরপাড়া, লোম্বাবিল, উনচিপ্রাং, কাঞ্জরপাড়া, হ্নীলা মৌলভীপাড়া, ওয়াবরাং, ফুলে ডেলে, চৌধুরীপাড়া, জালিয়াপাড়া এলাকায় সীমান্তের ওপার থেকে থেমে থেমে গুলি ও মর্টারের গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। হোয়াইকুং ও হ্নিলা সীমান্তের মায়ানমারের কুমিরহালি, নাইচডং, কোয়াংচিগং, শিলখালি, নাফপুরা গ্রামে লড়াই চলছে।

উনচিপ্রাং এলাকার বাসিন্দা দিলদার জানান, শনিবার দুপুর ১২টার পর থেকে উনচিপ্রাং সীমান্তে ব্যাপক গোলাগুলি ও মর্টার ছোড়া হয়। এমনকি মায়ানমারের ভেতরেও তারা আমাদের ঘরে ঢুকে পড়ছে বলে মনে হচ্ছে।

লোমাবিল এলাকার বাসিন্দা হারুন জানান, রাত থেকে থেমে থেমে গুলি ও মর্টার বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যাচ্ছে। ভোর থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত একটানা মর্টার শেল বিস্ফোরণ। এটা আমাদের সীমান্তের বাসিন্দাদের জাগিয়ে তোলে। আমরা খুব ভয় পাচ্ছি।

হোয়াইকসং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ আনোয়ারী জানান, কয়েকদিন ধরে ভারী অস্ত্রের শব্দ শোনা যাচ্ছে। সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। এতে আতঙ্কিত অধিকাংশ জেলে।

এদিকে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইকং থেকে শাহপরী দ্বীপ পর্যন্ত ৫৪ কিলোমিটার নাফ নদীতে বিজিবি ও কোস্টগার্ডের সদস্যরা টহল বাড়িয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

গুলি ও মর্টার শেলের শব্দে জেগে ওঠে টেকনাফ সীমান্তের মানুষ

আপডেট সময় : ১১:৪৩:২৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ মার্চ ২০২৪

Rakhine Border : কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হোয়াইকং সীমান্তে গুলি ও মর্টার শেলের শব্দে ঘুম ভেঙে গেছে। শুক্রবার (৮ মার্চ) মধ্যরাত থেকে মিয়ানমারের রাখাইনে সীমান্ত জুড়ে রাতভর গোলাবর্ষণ অব্যাহত রয়েছে। ফলে ওয়াইকং ইউনিয়নের লংবিল ও উনচিপ্রাং এলাকায় বসবাসকারী মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

স্থানীয়রা জানান, কয়েকদিন ধরেই গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। মিয়ানমারের রাখাইনে চলমান সহিংসতায় নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত আরাকান আর্মি। টেকনাফের হোয়াইকং উত্তরপাড়া, লোম্বাবিল, উনচিপ্রাং, কাঞ্জরপাড়া, হ্নীলা মৌলভীপাড়া, ওয়াবরাং, ফুলে ডেলে, চৌধুরীপাড়া, জালিয়াপাড়া এলাকায় সীমান্তের ওপার থেকে থেমে থেমে গুলি ও মর্টারের গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। হোয়াইকুং ও হ্নিলা সীমান্তের মায়ানমারের কুমিরহালি, নাইচডং, কোয়াংচিগং, শিলখালি, নাফপুরা গ্রামে লড়াই চলছে।

উনচিপ্রাং এলাকার বাসিন্দা দিলদার জানান, শনিবার দুপুর ১২টার পর থেকে উনচিপ্রাং সীমান্তে ব্যাপক গোলাগুলি ও মর্টার ছোড়া হয়। এমনকি মায়ানমারের ভেতরেও তারা আমাদের ঘরে ঢুকে পড়ছে বলে মনে হচ্ছে।

লোমাবিল এলাকার বাসিন্দা হারুন জানান, রাত থেকে থেমে থেমে গুলি ও মর্টার বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যাচ্ছে। ভোর থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত একটানা মর্টার শেল বিস্ফোরণ। এটা আমাদের সীমান্তের বাসিন্দাদের জাগিয়ে তোলে। আমরা খুব ভয় পাচ্ছি।

হোয়াইকসং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ আনোয়ারী জানান, কয়েকদিন ধরে ভারী অস্ত্রের শব্দ শোনা যাচ্ছে। সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। এতে আতঙ্কিত অধিকাংশ জেলে।

এদিকে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইকং থেকে শাহপরী দ্বীপ পর্যন্ত ৫৪ কিলোমিটার নাফ নদীতে বিজিবি ও কোস্টগার্ডের সদস্যরা টহল বাড়িয়েছে।