ঢাকা ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪

২৮ অক্টোবরের সহিংসতা, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৭ দেশের উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০২:০০:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ অক্টোবর ২০২৩ ১৭১ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

২৮ অক্টোবর (শনিবার) রাজধানী ঢাকার পল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশ কর্মসূচি ছিল। ওই দিন রাজধানীর কাকরাইল, বিজয়নগরসহ বিভিন্ন এলাকায় বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ হয়। রাজধানী ঢাকায় ২৮ অক্টোবর (শনিবার) রাজনৈতিক সমাবেশকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ সাত দেশ।

তারা সহিংসতা বন্ধ করে অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করতে সব পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করতে আহ্বান জানিয়েছে। আজ সোমবার (৩০ অক্টোবর) এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানায় সাতটি দেশ।

যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য ছাড়া অন্য দেশগুলো হলো অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও নরওয়ে।

আজ সাত দেশের দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় রাজনৈতিক সমাবেশে যে সহিংসতা হয়েছে, তাতে এসব দেশের সরকার গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এসব ঘটনায় নিহত ও আহত ব্যক্তিদের প্রতি তাঁরা সমবেদনা জানায়। বিবৃতিতে দেশগুলো বলেছে, ‘সহিসংতার পথ ত্যাগ করে সংযম প্রদর্শন এবং অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করতে সব পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করতে আমরা আহ্বান জানাই।’

২৮ অক্টোবরের সহিংসতা, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৭ দেশের উদ্বেগ

২৮ অক্টোবর সরকার পদত্যাগের এক দফা দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনে মহাসমাবেশ ডাকে বিএনপি। ওই দিন এর পাল্টা হিসেবে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে ‘শান্তি ও উন্নয়ন’ সমাবেশ ডাকে আওয়ামী লীগ।

বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে কাকরাইলে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে দুই পক্ষকেই মারমুখী অবস্থানে দেখা গেছে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এছাড়া অপর এক স্থানে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে একজন পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর খবরও পাওয়া যায়।

সংঘর্ষে এক পুলিশ সদস্যসহ দুজন নিহত হন। বিএনপির সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। পরদিন গতকাল রোববার বিএনপি ও জামায়াত সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাকে। ওই দিন রাজধানীতে ও লালমনিরহাটে দুজন নিহত হন।

আরও পড়ুন:

২৮ অক্টোবর নাশকতার কোনো আশঙ্কা নেই

এএমএন/৩০

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

২৮ অক্টোবরের সহিংসতা, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৭ দেশের উদ্বেগ

আপডেট সময় : ০২:০০:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ অক্টোবর ২০২৩

২৮ অক্টোবর (শনিবার) রাজধানী ঢাকার পল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশ কর্মসূচি ছিল। ওই দিন রাজধানীর কাকরাইল, বিজয়নগরসহ বিভিন্ন এলাকায় বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ হয়। রাজধানী ঢাকায় ২৮ অক্টোবর (শনিবার) রাজনৈতিক সমাবেশকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ সাত দেশ।

তারা সহিংসতা বন্ধ করে অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করতে সব পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করতে আহ্বান জানিয়েছে। আজ সোমবার (৩০ অক্টোবর) এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানায় সাতটি দেশ।

যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য ছাড়া অন্য দেশগুলো হলো অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও নরওয়ে।

আজ সাত দেশের দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ২৮ অক্টোবর ঢাকায় রাজনৈতিক সমাবেশে যে সহিংসতা হয়েছে, তাতে এসব দেশের সরকার গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এসব ঘটনায় নিহত ও আহত ব্যক্তিদের প্রতি তাঁরা সমবেদনা জানায়। বিবৃতিতে দেশগুলো বলেছে, ‘সহিসংতার পথ ত্যাগ করে সংযম প্রদর্শন এবং অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করতে সব পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করতে আমরা আহ্বান জানাই।’

২৮ অক্টোবরের সহিংসতা, যুক্তরাষ্ট্রসহ ৭ দেশের উদ্বেগ

২৮ অক্টোবর সরকার পদত্যাগের এক দফা দাবিতে রাজধানীর নয়াপল্টনে মহাসমাবেশ ডাকে বিএনপি। ওই দিন এর পাল্টা হিসেবে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে ‘শান্তি ও উন্নয়ন’ সমাবেশ ডাকে আওয়ামী লীগ।

বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে কাকরাইলে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে দুই পক্ষকেই মারমুখী অবস্থানে দেখা গেছে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এছাড়া অপর এক স্থানে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে একজন পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর খবরও পাওয়া যায়।

সংঘর্ষে এক পুলিশ সদস্যসহ দুজন নিহত হন। বিএনপির সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। পরদিন গতকাল রোববার বিএনপি ও জামায়াত সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাকে। ওই দিন রাজধানীতে ও লালমনিরহাটে দুজন নিহত হন।

আরও পড়ুন:

২৮ অক্টোবর নাশকতার কোনো আশঙ্কা নেই

এএমএন/৩০