ঢাকা ০৫:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

যেখানে সেখানে বিস্ফোরণ, আতঙ্কে রাজধানীবাসী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:২৫:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩ ১১৭ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকায় পরপর দুটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। অনেকে সঙ্গে কথা বলে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে বোঝা যাচ্ছে রাজধানীতে বসবাসরত বাসিন্দারা এখন ভয়ে আছেন। তাদের প্রশ্ন শহরটি আসলে কতটা নিরাপদ আছে, কিংবা নতুন পুরনো মিলে যে হাজার হাজার পরিকল্পিত কিংবা অপরিকল্পিত ভবন গড়ে উঠেছে সেগুলোই এই শহরকে অগ্নিগর্ভ হওয়ার মতো ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে কি-না।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির অসংখ্য অবৈধ লাইন ছড়িয়ে আছে পুরো নগরজুড়ে, এতে অনেক জায়গায় লিকেজ তৈরি হচ্ছে, যা থেকে হতে পারে মারাত্মক বিস্ফোরণ।

এ ছাড়া শহরের ভবনগুলোতে অভ্যন্তরীণ সংযোগ লাইনগুলোও নিয়মিত পরিচর্যা করা হয় না। ফলে প্রায়শই শর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূচনা হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে রাস্তার পাশের ভবনগুলো পর্যাপ্ত জায়গা না রাখায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইন, যা ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে পুরো ভবনকেই।

আবার স্যুয়ারেজের লাইন ঠিক না থাকায় বা নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম না করার কারণে গ্যাস জমে যাচ্ছে সেপটিক ট্যাংকে। এর বাইরে শীতের শেষের দিকে এসি বিস্ফোরণ বেড়ে যাওয়ার কারণ হলো নিম্নমানের এসি ব্যবহার করা এবং গরমের সময়ে কয়েকমাস বন্ধ রেখে সার্ভিসিং না করিয়েই এসি ব্যবহার করা।

এ ছাড়া পুরনো ভবনগুলোর ভেতরে এক সঙ্গে অনেক এসি ব্যবহার করা হয় নির্ধারিত দূরত্ব না মেনেই। যেগুলোর কোনো একটিতে গ্যাস লিকেজ হলে সবগুলোই বিস্ফোরিত হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়।

বনানীতে একটি ভবনে আগুন লাগার পর ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করার কথা বলেছিলো রাজউক। পরে সংস্থাটি দাবি করেছিলো দু লাখেরও বেশি ভবন পর্যালোচনা করে তারা ১ লাখ ৩৪ হাজারের বেশি ভবনই যথাযথ নিয়ম মেনে তৈরি হয়েছে।

তবে নিমতলীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর ঢাকার সবচেয়ে বেশি ঘনবসতির এলাকা পুরনো ঢাকাকে বাসযোগ্য করে তুলতে নানা উদ্যোগ নিলেও ভূমি মালিকসহ সংশ্লিষ্টদের দিক থেকে ইতিবাচক সাড়া আসেনি।

বিশ্লেষকরা বলছেন গ্যাস, পানি ও স্যুয়ারেজের লাইনে ত্রুটি এবং গ্যাস ও বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটই বড় ধরণের বিপর্যয় তৈরি করছে। অর্থাৎ প্লাম্বিং সমস্যাই এখন বড় যন্ত্রণার কারণ হয়ে উঠেছে এই নগরীতে।

তাদের মতে এগুলো পর্যালোচনা করে সত্যিকার অর্থে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করতে সরকারের সহযোগী সংস্থাগুলোর সমন্বয়ে কারিগরি জরিপ দরকার।

এদিকে ২০১৩ সালে রানা প্লাজার ঘটনাটি ঘটেছিলো ঢাকার কাছে সাভারে। তবে ওই ঘটনায় হাজারের বেশি শ্রমিকের মৃত্যুর পর আন্তর্জাতিক ক্রেতা গোষ্ঠীর চাপে গার্মেন্ট কারখানাগুলোর কর্মপরিবেশ উন্নত করার কাজ হয়েছে বাংলাদেশে।

কিন্তু শহরের আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবনগুলোর ক্ষেত্রে এ ধরণের কোনো চাপও আসেনি আবার কর্তৃপক্ষের দিক থেকেও কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

২০১০ সালের জুনে ঢাকার নিমতলীতে বাসা বাড়িতে থাকা রাসায়নিক গুদামে বিস্ফোরণে মারা গিয়েছিল ১২৪ জন। অথচ পুরনো ঢাকায় রাসায়নিক গুদাম কত আছে তার কোনো পূর্ণাঙ্গ হিসাবও কারও কাছে নেই।

সরকারের মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের এক জরিপে একবার বলা হয়েছিলো যে রাসায়নিক ব্যবসার ১ হাজার ৯২৪টি প্রতিষ্ঠান আছে। যদিও আন্তর্জাতিক সংস্থা টিআইবি দাবি করেছিলো যে পুরনো ঢাকায় দাহ্য পদার্থের অন্তত পনের হাজার গুদাম আছে।

ইন্সটিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বা আইপিডির নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান বলছেন, নিমতলীর ঘটনার তের বছরেও ওই এলাকা থেকে রাসায়নিক গুদাম সরাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

অধ্যাপক ডঃ মেহেদি আহমেদ আনসারী বলছেন, একটা পর একটা ঘটনা ঘটছে কিন্তু একে কেউ পাত্তাই দিচ্ছে না। রাজউক, সিটি করপোরেশনসহ দায়িত্বশীলরা কি করেছে। আমরা শহরের বিভিন্ন জায়গায় নানা সময়ে কাজ করে দেখেছি প্রতিটি ভবনেই কিছু না কিছু ফল্ট আছে। ফায়ার, ইলেক্ট্রিসিটি বা অবকাঠামোগত সমস্যা আছে। এখন বেশি দেখা যাচ্ছে প্লাম্বিং সমস্যা।

অর্থাৎ পানি ও স্যুয়ারেজের লাইন কিংবা গ্যাস বা বিদ্যুতের সংযোগ সমস্যার কারণেই বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে। অনেক জায়গায় অবৈধ গ্যাস, পানি ও বিদ্যুৎ লাইন চলছে কোনো ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছাড়াই।

অধ্যাপক আদিল মুহাম্মদ খানের মতে নগরের মূল বিষয় হলো ব্যবস্থাপনা। আর এই ব্যবস্থাপনার অংশ হলো নিয়মিত পরিদর্শন করে দেখা যে গ্যাস লিকেজ, স্যুয়ারেজ, এসি – কিন্তু ঠিক আছে কি-না। অথচ রাজউক এবং কলকারখানা পরিদর্শন পরিদপ্তরের আইনে পরিদর্শনের বিধান থাকলেও এই ব্যবস্থাপনা একেবারেই শূন্য।

তার মতে, ঢাকা বেশি বিপজ্জনক হয়ে হয়েছে ভূমির মিশ্র ব্যবহারের কারণে আর এটি আরও সংকটাপন্ন হচ্ছে আধুনিক ভবন বানানোর নামে আলো বাতাস প্রবেশের সুযোগ না রেখে কেন্দ্রীয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার ভবন নির্মাণের কারণে।

তিনি বলেন, পুরো নগরী বিপজ্জনক মিশ্র ব্যবহারের কারখানা। একই ভবনে রেস্তোরা, আবাসিক কিংবা ক্যামিকেল সামগ্রীর দোকান। সব মিলিয়েই তাই বলতে পারেন যে ঢাকা আসলেই অগ্নিগর্ভ অবস্থায় আছে।

রইস/৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

যেখানে সেখানে বিস্ফোরণ, আতঙ্কে রাজধানীবাসী

আপডেট সময় : ০১:২৫:০৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকায় পরপর দুটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। অনেকে সঙ্গে কথা বলে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে বোঝা যাচ্ছে রাজধানীতে বসবাসরত বাসিন্দারা এখন ভয়ে আছেন। তাদের প্রশ্ন শহরটি আসলে কতটা নিরাপদ আছে, কিংবা নতুন পুরনো মিলে যে হাজার হাজার পরিকল্পিত কিংবা অপরিকল্পিত ভবন গড়ে উঠেছে সেগুলোই এই শহরকে অগ্নিগর্ভ হওয়ার মতো ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে কি-না।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির অসংখ্য অবৈধ লাইন ছড়িয়ে আছে পুরো নগরজুড়ে, এতে অনেক জায়গায় লিকেজ তৈরি হচ্ছে, যা থেকে হতে পারে মারাত্মক বিস্ফোরণ।

এ ছাড়া শহরের ভবনগুলোতে অভ্যন্তরীণ সংযোগ লাইনগুলোও নিয়মিত পরিচর্যা করা হয় না। ফলে প্রায়শই শর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূচনা হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে রাস্তার পাশের ভবনগুলো পর্যাপ্ত জায়গা না রাখায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইন, যা ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে পুরো ভবনকেই।

আবার স্যুয়ারেজের লাইন ঠিক না থাকায় বা নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম না করার কারণে গ্যাস জমে যাচ্ছে সেপটিক ট্যাংকে। এর বাইরে শীতের শেষের দিকে এসি বিস্ফোরণ বেড়ে যাওয়ার কারণ হলো নিম্নমানের এসি ব্যবহার করা এবং গরমের সময়ে কয়েকমাস বন্ধ রেখে সার্ভিসিং না করিয়েই এসি ব্যবহার করা।

এ ছাড়া পুরনো ভবনগুলোর ভেতরে এক সঙ্গে অনেক এসি ব্যবহার করা হয় নির্ধারিত দূরত্ব না মেনেই। যেগুলোর কোনো একটিতে গ্যাস লিকেজ হলে সবগুলোই বিস্ফোরিত হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়।

বনানীতে একটি ভবনে আগুন লাগার পর ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করার কথা বলেছিলো রাজউক। পরে সংস্থাটি দাবি করেছিলো দু লাখেরও বেশি ভবন পর্যালোচনা করে তারা ১ লাখ ৩৪ হাজারের বেশি ভবনই যথাযথ নিয়ম মেনে তৈরি হয়েছে।

তবে নিমতলীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর ঢাকার সবচেয়ে বেশি ঘনবসতির এলাকা পুরনো ঢাকাকে বাসযোগ্য করে তুলতে নানা উদ্যোগ নিলেও ভূমি মালিকসহ সংশ্লিষ্টদের দিক থেকে ইতিবাচক সাড়া আসেনি।

বিশ্লেষকরা বলছেন গ্যাস, পানি ও স্যুয়ারেজের লাইনে ত্রুটি এবং গ্যাস ও বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটই বড় ধরণের বিপর্যয় তৈরি করছে। অর্থাৎ প্লাম্বিং সমস্যাই এখন বড় যন্ত্রণার কারণ হয়ে উঠেছে এই নগরীতে।

তাদের মতে এগুলো পর্যালোচনা করে সত্যিকার অর্থে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করতে সরকারের সহযোগী সংস্থাগুলোর সমন্বয়ে কারিগরি জরিপ দরকার।

এদিকে ২০১৩ সালে রানা প্লাজার ঘটনাটি ঘটেছিলো ঢাকার কাছে সাভারে। তবে ওই ঘটনায় হাজারের বেশি শ্রমিকের মৃত্যুর পর আন্তর্জাতিক ক্রেতা গোষ্ঠীর চাপে গার্মেন্ট কারখানাগুলোর কর্মপরিবেশ উন্নত করার কাজ হয়েছে বাংলাদেশে।

কিন্তু শহরের আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবনগুলোর ক্ষেত্রে এ ধরণের কোনো চাপও আসেনি আবার কর্তৃপক্ষের দিক থেকেও কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

২০১০ সালের জুনে ঢাকার নিমতলীতে বাসা বাড়িতে থাকা রাসায়নিক গুদামে বিস্ফোরণে মারা গিয়েছিল ১২৪ জন। অথচ পুরনো ঢাকায় রাসায়নিক গুদাম কত আছে তার কোনো পূর্ণাঙ্গ হিসাবও কারও কাছে নেই।

সরকারের মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের এক জরিপে একবার বলা হয়েছিলো যে রাসায়নিক ব্যবসার ১ হাজার ৯২৪টি প্রতিষ্ঠান আছে। যদিও আন্তর্জাতিক সংস্থা টিআইবি দাবি করেছিলো যে পুরনো ঢাকায় দাহ্য পদার্থের অন্তত পনের হাজার গুদাম আছে।

ইন্সটিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বা আইপিডির নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান বলছেন, নিমতলীর ঘটনার তের বছরেও ওই এলাকা থেকে রাসায়নিক গুদাম সরাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

অধ্যাপক ডঃ মেহেদি আহমেদ আনসারী বলছেন, একটা পর একটা ঘটনা ঘটছে কিন্তু একে কেউ পাত্তাই দিচ্ছে না। রাজউক, সিটি করপোরেশনসহ দায়িত্বশীলরা কি করেছে। আমরা শহরের বিভিন্ন জায়গায় নানা সময়ে কাজ করে দেখেছি প্রতিটি ভবনেই কিছু না কিছু ফল্ট আছে। ফায়ার, ইলেক্ট্রিসিটি বা অবকাঠামোগত সমস্যা আছে। এখন বেশি দেখা যাচ্ছে প্লাম্বিং সমস্যা।

অর্থাৎ পানি ও স্যুয়ারেজের লাইন কিংবা গ্যাস বা বিদ্যুতের সংযোগ সমস্যার কারণেই বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে। অনেক জায়গায় অবৈধ গ্যাস, পানি ও বিদ্যুৎ লাইন চলছে কোনো ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছাড়াই।

অধ্যাপক আদিল মুহাম্মদ খানের মতে নগরের মূল বিষয় হলো ব্যবস্থাপনা। আর এই ব্যবস্থাপনার অংশ হলো নিয়মিত পরিদর্শন করে দেখা যে গ্যাস লিকেজ, স্যুয়ারেজ, এসি – কিন্তু ঠিক আছে কি-না। অথচ রাজউক এবং কলকারখানা পরিদর্শন পরিদপ্তরের আইনে পরিদর্শনের বিধান থাকলেও এই ব্যবস্থাপনা একেবারেই শূন্য।

তার মতে, ঢাকা বেশি বিপজ্জনক হয়ে হয়েছে ভূমির মিশ্র ব্যবহারের কারণে আর এটি আরও সংকটাপন্ন হচ্ছে আধুনিক ভবন বানানোর নামে আলো বাতাস প্রবেশের সুযোগ না রেখে কেন্দ্রীয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার ভবন নির্মাণের কারণে।

তিনি বলেন, পুরো নগরী বিপজ্জনক মিশ্র ব্যবহারের কারখানা। একই ভবনে রেস্তোরা, আবাসিক কিংবা ক্যামিকেল সামগ্রীর দোকান। সব মিলিয়েই তাই বলতে পারেন যে ঢাকা আসলেই অগ্নিগর্ভ অবস্থায় আছে।

রইস/৮