ঢাকা ১০:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

পোস্ট গ্রাজুয়েটদের বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ভাতা নিয়ে টালবাহানার অভিযোগ চিকিৎসদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০১:৫৯:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪ ৯১ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ফটো

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Allegation of harassment :

বাংলাদেশ কলেজ অফ ফিজিশিয়ান এন্ড সার্জনের (বিসিপিএস) অধীনে পোস্ট গ্রাজুয়েট ট্রেইনি ডাক্তারেরা দীর্ঘ নয় মাস ধরে ভাতা পাচ্ছেন না। তিন মাস ধরে টালবাহানা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে চিকিৎসকদের। দুদিনের মধ্যে পরিশোধ না হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে

আজ শনিবার (১৬ মার্চ) বেলা ১১টা থেকে বকেয়া ভাতার দাবিতে বিসিপিএস ভবনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন ট্রেইনি ডাক্তাররা।দুদিনের মধ্যে ভাতা পরিশোধ না হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

ট্রেইনি ডাক্তাররা জানান, প্রতিমাসে ২৫ হাজার টাকা করে ছয় মাসে দেড় লাখ টাকা ভাতা দেওয়া হয়। জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসের টাকা জানুয়ারির শুরুতে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মার্চের অর্ধেক পেরিয়ে গেলেও ভাতা দিতে নানাভাবে টালবাহানা করা হচ্ছে। নিয়মিত যদি ভাতা না পাই তাহলে আমরা কিভাবে চলব, আমাদের পরিবার কিভাবে চলবে?’

আজ শনিবার বেলা ১২টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিসিপিএস ভবনের ৯ তলায় সমবেত হয়ে বিসিপিএসের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাসহ প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন ট্রেইনি ডাক্তাররা। এ সময় বিসিপিএস থেকে এক মাসের সময় চাইলেও তা মানতে নারাজ ট্রেইনি চিকিৎসকেরা। ভাতা দিতে না পারলে ব্যর্থতার দায় নিয়ে কর্মকর্তাদের পদত্যাগের দাবি জানান তারা। এ সময় টাকা ছাড়া ডিউটি নেই বলে স্লোগান দেন ডাক্তাররা।

পোস্ট গ্রাজুয়েট প্রাইভেট ট্রেইনি অ্যাসোসিয়শেনের সভাপতি জাবির হোসাইন বলেন, ‘এফসিপিএস করতে প্রতিদিন বহু রোগী আমাদের দেখতে হয়। চিকিৎসক হিসেবে এটা আমাদের দায়িত্ব, আমরা তা করব সমস্যা নেই। কিন্তু ভাতাটা আমাদের ঠিকঠাক দিতে হবে। এটা দিয়েই আমাদের চলতে হয়, পরিবারকে চালাতে হয়। জানুয়ারির শুরুতে ভাতা দেওয়ার কথা থাকলেও এখন বলা হচ্ছে আরও এক মাস সময় লাগবে। তারমানে পেছালেই আরও তিনমাস। আমরা এটি চাইনা। দুদিনের মধ্যে না দিতে পারলে আমরা চূড়ান্ত আন্দোলনে যাব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা মানুষের সেবা দেই, কিন্তু আমাদের ভাতা পেতে আন্দোলন করতে হচ্ছে। এটা খুবই দুঃখজনক। কর্মকর্তাদের ঈদ আছে, পরিবার আছে, আমাদের কিছু নেই।’

এ সময় বিসিপিএস সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহিদুল্লা ট্রেইনি ডাক্তারদের বলেন, ‘ভাতা প্রদানের বিষয়টির ব্যাপারে ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী উদ্যোগ নিয়েছেন। ভাতার টাকা তিন ভাগে আসে। দু’ভাগ চলে এসেছে, বাকিটা পরে আসবে।

এম.নাসির/১৬

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

পোস্ট গ্রাজুয়েটদের বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ভাতা নিয়ে টালবাহানার অভিযোগ চিকিৎসদের

আপডেট সময় : ০১:৫৯:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ মার্চ ২০২৪

Allegation of harassment :

বাংলাদেশ কলেজ অফ ফিজিশিয়ান এন্ড সার্জনের (বিসিপিএস) অধীনে পোস্ট গ্রাজুয়েট ট্রেইনি ডাক্তারেরা দীর্ঘ নয় মাস ধরে ভাতা পাচ্ছেন না। তিন মাস ধরে টালবাহানা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে চিকিৎসকদের। দুদিনের মধ্যে পরিশোধ না হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে

আজ শনিবার (১৬ মার্চ) বেলা ১১টা থেকে বকেয়া ভাতার দাবিতে বিসিপিএস ভবনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন ট্রেইনি ডাক্তাররা।দুদিনের মধ্যে ভাতা পরিশোধ না হলে বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

ট্রেইনি ডাক্তাররা জানান, প্রতিমাসে ২৫ হাজার টাকা করে ছয় মাসে দেড় লাখ টাকা ভাতা দেওয়া হয়। জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসের টাকা জানুয়ারির শুরুতে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মার্চের অর্ধেক পেরিয়ে গেলেও ভাতা দিতে নানাভাবে টালবাহানা করা হচ্ছে। নিয়মিত যদি ভাতা না পাই তাহলে আমরা কিভাবে চলব, আমাদের পরিবার কিভাবে চলবে?’

আজ শনিবার বেলা ১২টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিসিপিএস ভবনের ৯ তলায় সমবেত হয়ে বিসিপিএসের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাসহ প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন ট্রেইনি ডাক্তাররা। এ সময় বিসিপিএস থেকে এক মাসের সময় চাইলেও তা মানতে নারাজ ট্রেইনি চিকিৎসকেরা। ভাতা দিতে না পারলে ব্যর্থতার দায় নিয়ে কর্মকর্তাদের পদত্যাগের দাবি জানান তারা। এ সময় টাকা ছাড়া ডিউটি নেই বলে স্লোগান দেন ডাক্তাররা।

পোস্ট গ্রাজুয়েট প্রাইভেট ট্রেইনি অ্যাসোসিয়শেনের সভাপতি জাবির হোসাইন বলেন, ‘এফসিপিএস করতে প্রতিদিন বহু রোগী আমাদের দেখতে হয়। চিকিৎসক হিসেবে এটা আমাদের দায়িত্ব, আমরা তা করব সমস্যা নেই। কিন্তু ভাতাটা আমাদের ঠিকঠাক দিতে হবে। এটা দিয়েই আমাদের চলতে হয়, পরিবারকে চালাতে হয়। জানুয়ারির শুরুতে ভাতা দেওয়ার কথা থাকলেও এখন বলা হচ্ছে আরও এক মাস সময় লাগবে। তারমানে পেছালেই আরও তিনমাস। আমরা এটি চাইনা। দুদিনের মধ্যে না দিতে পারলে আমরা চূড়ান্ত আন্দোলনে যাব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা মানুষের সেবা দেই, কিন্তু আমাদের ভাতা পেতে আন্দোলন করতে হচ্ছে। এটা খুবই দুঃখজনক। কর্মকর্তাদের ঈদ আছে, পরিবার আছে, আমাদের কিছু নেই।’

এ সময় বিসিপিএস সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহিদুল্লা ট্রেইনি ডাক্তারদের বলেন, ‘ভাতা প্রদানের বিষয়টির ব্যাপারে ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী উদ্যোগ নিয়েছেন। ভাতার টাকা তিন ভাগে আসে। দু’ভাগ চলে এসেছে, বাকিটা পরে আসবে।

এম.নাসির/১৬