ঢাকা ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

বিএসএমএমইউতে চালু হবে ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ : শারফুদ্দিন আহমেদ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১৮:৪১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ মার্চ ২০২৩ ১১৭ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএসএমএমইউতে ক্যানসার রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে ও প্রতিরোধে গবেষণার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে খুব শিগগিরই আন্তর্জাতিক মানের ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ চালু হবে।

মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাপানে ‘ক্যানসারের চিকিৎসা ও প্রতিরোধে গবেষণা’ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সভায় বক্তব্য দিতে গিয়ে এ কথা জানান।

জাপানের টোকিওতে বিশ্বমানের ক্যানসার গবেষণায় পথিকৃৎ ‘ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার’-এ প্রথমবারের মতো কোনো বাংলাদেশি গবেষক ও চিকিৎসক হিসেবে বিএসএমএমইউ উপাচার্য লেকচার দেয়ার সম্মাননা পান।

অনুষ্ঠানে শারফুদ্দিন আহমেদ ‘বাংলাদেশের ক্যানসার পরিস্থিতি ও ক্যানসার চিকিৎসায় বিএসএমএমইউর ভূমিকা’ শীর্ষক লেকচার দেন। লেকচারে জাপানিজ গবেষক ছাড়াও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্যানস্যার গবেষকরা, গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীরা ও বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা যোগদান করেন।

লেকচার-পরবর্তী এক বিশেষ গোলটেবিল বৈঠকে বিএসএমএমইউর উপাচার্য বাংলাদেশের ক্যানসার চিকিৎসার উন্নয়নে ‘গবেষণা ও আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থা’ নিশ্চিতকল্পে খুব শিগগিরই বিএসএমএমইউ’তে ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের সহযোগিতা কামনা করেন এবং পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে ক্যানসার বিষয়ক গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশ ও ক্যানসার রেজিস্ট্রি চালু করার ব্যাপারে তারা ঐকমত্যে পৌঁছান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের ‘ডিভিশন অব প্রিভেনশন’-এর প্রধান ড. মানামি ইনোউয়ে, ডিভিশন অব ইন্টারন্যাশনাল হেলথ পলিসি রিসার্চ-এর প্রধান ড. তমোহিরো মাৎসুদা, সেকশন হেড (ডিভিশন অব প্রিভেনশন) ড. সারাহ কে আবে, ডিভিশন অব ইন্টারন্যাশনাল হেলথ পলিসি রিসার্চের স্টাফ সায়েন্টিস্ট ড. লরেলিন গ্যাটেলিয়ার, হামামাৎসু ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিন সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ড. শাফিউর রহমান, হিতোৎসুবাশি ইনস্টিটিউট ফর অ্যাডভান্সড স্টাডির রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট ড. রাশেদুল ইসলাম ও ইউনিভার্সিটি অব টোকিওর পিএইচডি ফেলো ড. তাজবীর আহমেদ।

এ ছাড়াও ক্যানসার নিয়ে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সভায় ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার হসপিটালের ডিরেক্টর (ডিপার্টমেন্ট অব ইন্টারন্যাশনাল ক্লিনিক্যাল ডেভেলপমেন্ট) ড. কেনিচি নাকামুরা বাংলাদেশের বিএসএমএমইউর সঙ্গে ‘এশিয়ান ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালস নেটওয়ার্ক ফর ক্যানসার প্রজেক্ট’-এর আওতায় ক্যানসার গবেষণা ও ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পরিচালনা বিষয়ে উপাচার্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং প্রশাসনিক কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

শারফুদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশি চিকিৎসকদের জন্য আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ ও গবেষণার জন্য দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার হসপিটালের সঙ্গে সমন্বিতভাবে কাজ করার আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে প্রতিষ্ঠিত মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে সুদক্ষ চিকিৎসক, নার্স ও মেডিকেল টিমের সহযোগিতায় বাংলাদেশের চিকিৎসা ও গবেষণাবিষয়ক কর্মকাণ্ড ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। শুধু দেশের গণ্ডিতেই নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও বাংলাদেশকে তুলে ধরতে ও গবেষণা কার্যক্রমে সবাইকে সম্পৃক্ত করতে আমরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। এরই ধারাবাহিকতায় এরই মধ্যে আমেরিকা, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয় ও ইনস্টিটিউটের সঙ্গে আমরা সম্মিলিতভাবে গবেষণা কার্যক্রম শুরু করেছি। আজ জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ এ আলোচনা সেই ধারাবাহিকতারই অংশ।

বাংলাদেশে ক্যানসার চিকিৎসা ও গবেষণার মানোন্নয়নে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘ভিশন ২০৪১’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিএসএমএমইউর ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এম.নাসির/১

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বিএসএমএমইউতে চালু হবে ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ : শারফুদ্দিন আহমেদ

আপডেট সময় : ১১:১৮:৪১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএসএমএমইউতে ক্যানসার রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে ও প্রতিরোধে গবেষণার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে খুব শিগগিরই আন্তর্জাতিক মানের ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ চালু হবে।

মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাপানে ‘ক্যানসারের চিকিৎসা ও প্রতিরোধে গবেষণা’ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সভায় বক্তব্য দিতে গিয়ে এ কথা জানান।

জাপানের টোকিওতে বিশ্বমানের ক্যানসার গবেষণায় পথিকৃৎ ‘ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার’-এ প্রথমবারের মতো কোনো বাংলাদেশি গবেষক ও চিকিৎসক হিসেবে বিএসএমএমইউ উপাচার্য লেকচার দেয়ার সম্মাননা পান।

অনুষ্ঠানে শারফুদ্দিন আহমেদ ‘বাংলাদেশের ক্যানসার পরিস্থিতি ও ক্যানসার চিকিৎসায় বিএসএমএমইউর ভূমিকা’ শীর্ষক লেকচার দেন। লেকচারে জাপানিজ গবেষক ছাড়াও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্যানস্যার গবেষকরা, গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীরা ও বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা যোগদান করেন।

লেকচার-পরবর্তী এক বিশেষ গোলটেবিল বৈঠকে বিএসএমএমইউর উপাচার্য বাংলাদেশের ক্যানসার চিকিৎসার উন্নয়নে ‘গবেষণা ও আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থা’ নিশ্চিতকল্পে খুব শিগগিরই বিএসএমএমইউ’তে ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের সহযোগিতা কামনা করেন এবং পারস্পরিক অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে ক্যানসার বিষয়ক গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশ ও ক্যানসার রেজিস্ট্রি চালু করার ব্যাপারে তারা ঐকমত্যে পৌঁছান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের ‘ডিভিশন অব প্রিভেনশন’-এর প্রধান ড. মানামি ইনোউয়ে, ডিভিশন অব ইন্টারন্যাশনাল হেলথ পলিসি রিসার্চ-এর প্রধান ড. তমোহিরো মাৎসুদা, সেকশন হেড (ডিভিশন অব প্রিভেনশন) ড. সারাহ কে আবে, ডিভিশন অব ইন্টারন্যাশনাল হেলথ পলিসি রিসার্চের স্টাফ সায়েন্টিস্ট ড. লরেলিন গ্যাটেলিয়ার, হামামাৎসু ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিন সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ড. শাফিউর রহমান, হিতোৎসুবাশি ইনস্টিটিউট ফর অ্যাডভান্সড স্টাডির রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট ড. রাশেদুল ইসলাম ও ইউনিভার্সিটি অব টোকিওর পিএইচডি ফেলো ড. তাজবীর আহমেদ।

এ ছাড়াও ক্যানসার নিয়ে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সভায় ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার হসপিটালের ডিরেক্টর (ডিপার্টমেন্ট অব ইন্টারন্যাশনাল ক্লিনিক্যাল ডেভেলপমেন্ট) ড. কেনিচি নাকামুরা বাংলাদেশের বিএসএমএমইউর সঙ্গে ‘এশিয়ান ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালস নেটওয়ার্ক ফর ক্যানসার প্রজেক্ট’-এর আওতায় ক্যানসার গবেষণা ও ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পরিচালনা বিষয়ে উপাচার্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং প্রশাসনিক কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

শারফুদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশি চিকিৎসকদের জন্য আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ ও গবেষণার জন্য দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টার হসপিটালের সঙ্গে সমন্বিতভাবে কাজ করার আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে প্রতিষ্ঠিত মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে সুদক্ষ চিকিৎসক, নার্স ও মেডিকেল টিমের সহযোগিতায় বাংলাদেশের চিকিৎসা ও গবেষণাবিষয়ক কর্মকাণ্ড ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। শুধু দেশের গণ্ডিতেই নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও বাংলাদেশকে তুলে ধরতে ও গবেষণা কার্যক্রমে সবাইকে সম্পৃক্ত করতে আমরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছি। এরই ধারাবাহিকতায় এরই মধ্যে আমেরিকা, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয় ও ইনস্টিটিউটের সঙ্গে আমরা সম্মিলিতভাবে গবেষণা কার্যক্রম শুরু করেছি। আজ জাপানের ন্যাশনাল ক্যানসার সেন্টারের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ এ আলোচনা সেই ধারাবাহিকতারই অংশ।

বাংলাদেশে ক্যানসার চিকিৎসা ও গবেষণার মানোন্নয়নে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘ভিশন ২০৪১’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিএসএমএমইউর ‘বঙ্গবন্ধু ক্যানসার সেন্টার’ নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এম.নাসির/১