ঢাকা ০৪:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

কৃচ্ছ্রসাধনে পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:০৩:২৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩ ১১২ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে নতুন করে কৃচ্ছ্রসাধনের পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। এজন্য বিদ্যুৎ এবং জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ সাশ্রয় করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

উন্নয়ন বাজেটের আওতায় নতুন গাড়ি কেনা যাবে না এবং সি ক্যাটাগরিভুক্ত প্রকল্পের অর্থছাড় পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।
সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে এ-সংক্রান্ত নির্দেশ দিয়ে এক পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের (বাজেট অনুবিভাগ) উপ সচিব মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান স্বাক্ষরিত পরিপত্রে বলা হয়েছে, বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহার নিশ্চিতকল্পে ২০২২-২৩ অর্থবছরে সংশোধিত বাজেটের সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে কতিপয় খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার নিম্নোক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, পরিচালনা বাজেটে বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। প্রশিক্ষণ খাতে (প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান বাদে) বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে এবং পেট্রোল, অয়েল ও লুব্রিকেন্ট, গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

অন্যদিকে উন্নয়ন বাজেটে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে উন্নয়ন বাজেটের অধীন বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভুক্ত নির্ধারিত এ ক্যাটাগরি চিহ্নিত প্রকল্পে সরকারি অংশে বরাদ্দকৃত অর্থ শতভাগ এবং বি ক্যাটাগরি চিহ্নিত প্রকল্পে সরকারি অংশে বরাদ্দকৃত অর্থের ১৫ শতাংশ সংরক্ষিত রেখে অনূর্ধ্ব ৮৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। এছাড়া সি ক্যাটাগরিভুক্ত প্রকল্পের অর্থছাড় পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

তবে আপ্যায়ন, প্রশিক্ষণ, ভ্রমণ এবং অন্যান্য মনিহারি যেমন কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ও আসবাবপত্র খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। এছাড়া ৩১১১১১৩ বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ, পেট্রোল অয়েল ও লুব্রিকেন্ট, গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে এবং নতুন বা প্রতিস্থাপক হিসেবে সব প্রকার যানবাহন ক্রয় যেমন-মোটরযান, জলযান এবং আকাশযান বন্ধ থাকবে।

এদিকে কৃচ্ছ্রসাধনের নির্দেশিত খাতগুলোর বরাদ্দকৃত অর্থ মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো অন্য খাতে এবং অন্য কোনো খাত থেকে এসব খাতে পুনঃউপযোজন করা যাবে না। এ, বি এবং সি ক্যাটাগরি নির্বিশেষে যেসব প্রকল্প ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ৩০ জুন ২০২৩ তারিখে সমাপ্তির জন্য নির্ধারিত এবং কোনোক্রমেই মেয়াদ বাড়ানোর অবকাশ নেই, সেসব প্রকল্পের ক্ষেত্রে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় করা যাবে, উন্নয়ন বাজেটের অধীনে শর্তাবলী প্রযোজ্য হবে না।

এম.নাসির/১৩

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

কৃচ্ছ্রসাধনে পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার

আপডেট সময় : ১০:০৩:২৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে নতুন করে কৃচ্ছ্রসাধনের পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। এজন্য বিদ্যুৎ এবং জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ সাশ্রয় করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

উন্নয়ন বাজেটের আওতায় নতুন গাড়ি কেনা যাবে না এবং সি ক্যাটাগরিভুক্ত প্রকল্পের অর্থছাড় পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।
সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে এ-সংক্রান্ত নির্দেশ দিয়ে এক পরিপত্র জারি করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের (বাজেট অনুবিভাগ) উপ সচিব মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান স্বাক্ষরিত পরিপত্রে বলা হয়েছে, বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহার নিশ্চিতকল্পে ২০২২-২৩ অর্থবছরে সংশোধিত বাজেটের সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে কতিপয় খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার নিম্নোক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, পরিচালনা বাজেটে বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। প্রশিক্ষণ খাতে (প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান বাদে) বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে এবং পেট্রোল, অয়েল ও লুব্রিকেন্ট, গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

অন্যদিকে উন্নয়ন বাজেটে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে উন্নয়ন বাজেটের অধীন বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভুক্ত নির্ধারিত এ ক্যাটাগরি চিহ্নিত প্রকল্পে সরকারি অংশে বরাদ্দকৃত অর্থ শতভাগ এবং বি ক্যাটাগরি চিহ্নিত প্রকল্পে সরকারি অংশে বরাদ্দকৃত অর্থের ১৫ শতাংশ সংরক্ষিত রেখে অনূর্ধ্ব ৮৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। এছাড়া সি ক্যাটাগরিভুক্ত প্রকল্পের অর্থছাড় পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

তবে আপ্যায়ন, প্রশিক্ষণ, ভ্রমণ এবং অন্যান্য মনিহারি যেমন কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ও আসবাবপত্র খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। এছাড়া ৩১১১১১৩ বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ, পেট্রোল অয়েল ও লুব্রিকেন্ট, গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে এবং নতুন বা প্রতিস্থাপক হিসেবে সব প্রকার যানবাহন ক্রয় যেমন-মোটরযান, জলযান এবং আকাশযান বন্ধ থাকবে।

এদিকে কৃচ্ছ্রসাধনের নির্দেশিত খাতগুলোর বরাদ্দকৃত অর্থ মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো অন্য খাতে এবং অন্য কোনো খাত থেকে এসব খাতে পুনঃউপযোজন করা যাবে না। এ, বি এবং সি ক্যাটাগরি নির্বিশেষে যেসব প্রকল্প ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ৩০ জুন ২০২৩ তারিখে সমাপ্তির জন্য নির্ধারিত এবং কোনোক্রমেই মেয়াদ বাড়ানোর অবকাশ নেই, সেসব প্রকল্পের ক্ষেত্রে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় করা যাবে, উন্নয়ন বাজেটের অধীনে শর্তাবলী প্রযোজ্য হবে না।

এম.নাসির/১৩