ঢাকা ১২:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

মগবাজারে ড. মঈন খান

আ.লীগ নিজেরাই নৌকা ডুবিয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৮:২৭:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ১৬ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ফটো

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
The boat sank :

রাজধানীর মগবাজারে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেছেন, ‘আওয়ামী নিজেরােই নৌকা ডুবিয়েছে।’

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর মগবাজারে বিএনপির সহ স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক হৃদরোগে আক্তান্ত ডা. পারভেজ রেজা কাকনের শারীরিক খোঁজ-খবর নিতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি। এসময় তিনি অসুস্থ কাকনের শারীরিক ও পারিবারিক অবস্থান খোঁজ নেন।

উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অতীতে কখনই বাংলাদেশে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হয়নি। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সেটা বাদ দিয়ে তা দলীয় প্রতীকে শুরু করেছে। ৭ই জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে বর্জনের পর আওয়ামী লীগ বুঝতে পেরেছে যে, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করা হলে দেশের সামাজিক কাঠামোটা ভেঙে যাবে। নিজেদের নৌকা নিজেরাই ডুবিয়েছে। সুতরাং অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ ছাড়া এবং এই সরকার ও তাদের সাজানো নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবো না। তবে গ্রামে-গঞ্জে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কে যাবে কে যাবে না সেটা তো বিএনপি দলীয়ভাবে দেখতে পারে না।

মঈন খান বলেন, হামলা-মামলা গুলির মাধ্যমে বিরোধী দলকে দমনের জন্য অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে সরকার। তবে এসব করে ৭ই জানুয়ারি প্রহসনের নির্বাচনেও কিন্তু দেশের মানুষকে ভোট কেন্দ্রে নিতে পারেনি সরকার। ভয় দেখিয়ে মানুষকে দমিয়ে রাখতে চায়।

দেশের জনগণ কিন্তু সরকারের বিরুদ্ধে নীরব প্রতিবাদ করেছে। তারা ভোট কেন্দ্রে যায়নি। কারণ এই ভোটের ওপর তাদের আস্থা নেই। এতেই প্রমাণিত হয় যে, সরকার দেশের মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে শাসন করা ও ক্ষমতায় আঁকড়ে থাকার নীতি ভুল। তারা কিন্তু বিরোধী দল দমনসহ বিএনপিকে ভাঙতে ষড়যন্ত্র করেই যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের নিরীহ ও নিরস্ত্র নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কিভাবে টিয়ারশেল ছুঁড়েছে। অনেকেই গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এটা সকলেই জানেন। তবুও নেতাকর্মীরা কিন্তু থেমে যাননি। তারা আন্দোলন চালিয়ে গেছেন।
ড. মঈন বলেন, দল গোছানো ও সংগঠন পুনর্গঠন করা চলমান প্রক্রিয়া। রাজনীতি কোনো কাপড় নয় যে, সাজিয়ে গুছিয়ে আলনা বা আলমারিতে রাখা যায়। সরকারকে বলবো- প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করে একটি আদর্শের রাজনীতিতে ফিরে আসুন। বিএনপি নিয়মতান্ত্রিকভাবে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও জনগণের ভোটাধিকার পুন:প্রতিষ্ঠা করবো, ইনশাআল্লাহ।

এম.নাসির/১৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

মগবাজারে ড. মঈন খান

আ.লীগ নিজেরাই নৌকা ডুবিয়েছে

আপডেট সময় : ০৮:২৭:০৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪
The boat sank :

রাজধানীর মগবাজারে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেছেন, ‘আওয়ামী নিজেরােই নৌকা ডুবিয়েছে।’

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর মগবাজারে বিএনপির সহ স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক হৃদরোগে আক্তান্ত ডা. পারভেজ রেজা কাকনের শারীরিক খোঁজ-খবর নিতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি। এসময় তিনি অসুস্থ কাকনের শারীরিক ও পারিবারিক অবস্থান খোঁজ নেন।

উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অতীতে কখনই বাংলাদেশে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হয়নি। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সেটা বাদ দিয়ে তা দলীয় প্রতীকে শুরু করেছে। ৭ই জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকে বর্জনের পর আওয়ামী লীগ বুঝতে পেরেছে যে, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করা হলে দেশের সামাজিক কাঠামোটা ভেঙে যাবে। নিজেদের নৌকা নিজেরাই ডুবিয়েছে। সুতরাং অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ ছাড়া এবং এই সরকার ও তাদের সাজানো নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবো না। তবে গ্রামে-গঞ্জে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কে যাবে কে যাবে না সেটা তো বিএনপি দলীয়ভাবে দেখতে পারে না।

মঈন খান বলেন, হামলা-মামলা গুলির মাধ্যমে বিরোধী দলকে দমনের জন্য অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে সরকার। তবে এসব করে ৭ই জানুয়ারি প্রহসনের নির্বাচনেও কিন্তু দেশের মানুষকে ভোট কেন্দ্রে নিতে পারেনি সরকার। ভয় দেখিয়ে মানুষকে দমিয়ে রাখতে চায়।

দেশের জনগণ কিন্তু সরকারের বিরুদ্ধে নীরব প্রতিবাদ করেছে। তারা ভোট কেন্দ্রে যায়নি। কারণ এই ভোটের ওপর তাদের আস্থা নেই। এতেই প্রমাণিত হয় যে, সরকার দেশের মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে শাসন করা ও ক্ষমতায় আঁকড়ে থাকার নীতি ভুল। তারা কিন্তু বিরোধী দল দমনসহ বিএনপিকে ভাঙতে ষড়যন্ত্র করেই যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের নিরীহ ও নিরস্ত্র নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কিভাবে টিয়ারশেল ছুঁড়েছে। অনেকেই গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এটা সকলেই জানেন। তবুও নেতাকর্মীরা কিন্তু থেমে যাননি। তারা আন্দোলন চালিয়ে গেছেন।
ড. মঈন বলেন, দল গোছানো ও সংগঠন পুনর্গঠন করা চলমান প্রক্রিয়া। রাজনীতি কোনো কাপড় নয় যে, সাজিয়ে গুছিয়ে আলনা বা আলমারিতে রাখা যায়। সরকারকে বলবো- প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করে একটি আদর্শের রাজনীতিতে ফিরে আসুন। বিএনপি নিয়মতান্ত্রিকভাবে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও জনগণের ভোটাধিকার পুন:প্রতিষ্ঠা করবো, ইনশাআল্লাহ।

এম.নাসির/১৮