ঢাকা ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

যুব গেমসের ৭ জন কারাগারে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:১৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩ ১১০ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রাজশাহী সংবাদদাতা

সদ্য শেষ হওয়ায় শেখ কামাল যুব বাংলাদেশ গেমসে অংশগ্রহণ শেষে রোববার রাজশাহীতে ফিরেই গ্রেফতার হয়েছে কোচসহ ১২জন খেলোয়াড়। এদের মধ্যে ৮জনই মেয়ে। ৫ জন মেয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় রাতে তাদের জামিন দেয় আদালত। বাকি ৭জনকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রাজশাহী রেল স্ট্রেশনে নামার পরই পুলিশ তাদের আটক করে। পরে তাদের বিরুদ্ধে একজন পুলিশ কনস্টেবলকে মারধরের মামলা দেয়া হয়। তবে খেলোয়াড় ও তাদের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

শেখ কামাল দ্বিতীয় বাংলাদেশ যুব গেমসে অংশ নিয়ে রাজশাহী বিভাগীয় দলের এই খেলোয়াড়দের বাড়ি ফিরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর কথা। কিন্তু তারা কেউ কারাগারে, আর কেউ থানা পুলিশ ও আদালত করছেন। রোববার দুপুরে ধমকেতু ট্রেনে রাজশাহী রেল স্টেশনে নামার পরই এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা কাটাকাটির জের ধরে কোচসহ ১২জন খেলোয়াড়কে রেলওয়ে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

জানা যায়, সাধারণ ড্রেসে থাকা ওই ব্যক্তি গোলাম কিবরিয়া পুলিশের কনস্টেবল। স্ত্রীকে নিয়ে তিনিও একই ট্রেনে রাজশাহী ফেরেন। ট্রেনের ভেতর খেলোয়াড়দের একটি ব্যাগ খোঁজাখুঁজি করার সময় ওই লোকের সাথে কথা কাটাকাটি হয়, এক পর্যায়ে গোলাম কিবরিয়া একজন মেয়ে খেলোয়াড়কে চড় মারেন। স্ট্রেশনে নামার পর আবার কথাকাটাকাটি হলে কিবরিয়াকে মারধর করে খেলোয়াড়রা। এই অভিযোগ এনে খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে মামলা করে কিবরিয়ার স্ত্রী।

এই অভিযোগের পর সবাইকে পুলিশ আটক করে। রাতে তাদের রাজশাহীর আদালতে নেয়া হয়। ৫ জন মেয়ে খেলোয়াড়ের বয়স ১৮ বছরের নিচে হওয়ায় আদালত তাদের জামিন দেয়। কোচ আহসান কবিরসহ ৭জন খেলোয়াড়কে কারাগারে পাঠায় আদালত।

তবে খেলোয়াড়দের পরিবারের দাবি, মিথ্যে অভিযোগে মামলা করে তাদের হেনস্থা করা হয়েছে।

রইস/৬

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

যুব গেমসের ৭ জন কারাগারে

আপডেট সময় : ১০:১৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

রাজশাহী সংবাদদাতা

সদ্য শেষ হওয়ায় শেখ কামাল যুব বাংলাদেশ গেমসে অংশগ্রহণ শেষে রোববার রাজশাহীতে ফিরেই গ্রেফতার হয়েছে কোচসহ ১২জন খেলোয়াড়। এদের মধ্যে ৮জনই মেয়ে। ৫ জন মেয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় রাতে তাদের জামিন দেয় আদালত। বাকি ৭জনকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রাজশাহী রেল স্ট্রেশনে নামার পরই পুলিশ তাদের আটক করে। পরে তাদের বিরুদ্ধে একজন পুলিশ কনস্টেবলকে মারধরের মামলা দেয়া হয়। তবে খেলোয়াড় ও তাদের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

শেখ কামাল দ্বিতীয় বাংলাদেশ যুব গেমসে অংশ নিয়ে রাজশাহী বিভাগীয় দলের এই খেলোয়াড়দের বাড়ি ফিরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর কথা। কিন্তু তারা কেউ কারাগারে, আর কেউ থানা পুলিশ ও আদালত করছেন। রোববার দুপুরে ধমকেতু ট্রেনে রাজশাহী রেল স্টেশনে নামার পরই এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা কাটাকাটির জের ধরে কোচসহ ১২জন খেলোয়াড়কে রেলওয়ে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

জানা যায়, সাধারণ ড্রেসে থাকা ওই ব্যক্তি গোলাম কিবরিয়া পুলিশের কনস্টেবল। স্ত্রীকে নিয়ে তিনিও একই ট্রেনে রাজশাহী ফেরেন। ট্রেনের ভেতর খেলোয়াড়দের একটি ব্যাগ খোঁজাখুঁজি করার সময় ওই লোকের সাথে কথা কাটাকাটি হয়, এক পর্যায়ে গোলাম কিবরিয়া একজন মেয়ে খেলোয়াড়কে চড় মারেন। স্ট্রেশনে নামার পর আবার কথাকাটাকাটি হলে কিবরিয়াকে মারধর করে খেলোয়াড়রা। এই অভিযোগ এনে খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে মামলা করে কিবরিয়ার স্ত্রী।

এই অভিযোগের পর সবাইকে পুলিশ আটক করে। রাতে তাদের রাজশাহীর আদালতে নেয়া হয়। ৫ জন মেয়ে খেলোয়াড়ের বয়স ১৮ বছরের নিচে হওয়ায় আদালত তাদের জামিন দেয়। কোচ আহসান কবিরসহ ৭জন খেলোয়াড়কে কারাগারে পাঠায় আদালত।

তবে খেলোয়াড়দের পরিবারের দাবি, মিথ্যে অভিযোগে মামলা করে তাদের হেনস্থা করা হয়েছে।

রইস/৬