ঢাকা ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

খেলোয়াড়ের স্ত্রীকে দেখে ধারাভাষ্যকারের বেফাঁস মন্তব্য

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৪২:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩ ১১৫ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্পোর্টস ডেস্ক

পাকিস্তানের ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট আসর পিএসএলে একের পর এক বেফাঁস মন্তব্য করে চলেছেন কিউই ধারাভাষ্যকার সাইমন ডুল। এর আগে তিনি পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজমকে স্বার্থপর আখ্যা দিয়েছিলেন। এবার সেই সীমাও ছাড়ালেন তিনি। ম্যাচ চলাকালেই ডুল দেশটির পেসার হাসান আলীর স্ত্রীকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন।

ম্যাচের টান টান পরিস্থিতিতে উত্তেজনার পারদ আরও বাড়িয়ে দেন ধারাভাষ্যকাররা। খেলার অবস্থার সঙ্গে তাল মিলিয়ে তাদের মন্তব্যও হয়ে থাকে প্রাসঙ্গিক। পরবর্তীতে ধারাভাষ্যকারদের করা সেসব মন্তব্য স্মরণীয় হয়ে ওঠে।

ঘটনাটি ঘটেছে পিএসএলে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড এবং মুলতান সুলতানের মধ্যে ম্যাচের সময়কার। সেই ম্যাচে মুলতানকে হারিয়ে দেয় ইসলামাবাদ। মুলতানের দেওয়া ২০৬ রানের টার্গেট তাড়া করে হাসান আলীরা দুই উইকেটে জয় পায়। তবে তিনি একাদশে না থাকলেও দলের জয়ে অন্য সবার সঙ্গে উদযাপন করেন তার স্ত্রী সামিয়া আরজু।

তখনই সামিয়াকে দেখে নিউজিল্যান্ডের ধারাভাষ্যকার সাইমন ডুল বলে উঠেন, ‘ওয়াও ওয়াও। উনি জিতে নিয়েছেন। আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি, তিনি বেশ কয়েকজনের হৃদয়ও জিতে নিয়েছেন। দুর্দান্ত। অপূর্ব। জয়টাও দুর্দান্ত।’ তবে তার সেই ধারাভাষ্যের ভিডিওটি ছড়াতে তেমন সময় লাগেনি।

সামাজিক মাধ্যমে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনাও তৈরি হয়েছে। তার এই মন্তব্য নিছক প্রশংসা হিসেবে দেখতে নারাজ ভক্তদের অনেকেই। তাদের মতে ডুলের মন্তব্যে ক্রিকেটারের স্ত্রীর প্রতি অশালীন ইঙ্গিত রয়েছে। আবার কারও মতে, তার মন্তব্যে লালসা কাজ করেছে। ক্রিকেট ধারাবিবরণীতে এরকম মন্তব্য করা ডুলের উচিত হয়নি।

এর আগে বাবরের খেলা নিয়ে সমালোচনা করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের সাবেক এই ক্রিকেটার। ৩২টি টেস্ট এবং ৪২টি ওয়ানডে ম্যাচে তিনি ১৩৪টি উইকেট পেয়েছিলেন। ২০০০ সালে ক্রিকেট ছাড়লেও এরপর থেকে তিনি ধারাভাষ্যকারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

বাবরকে নিয়েও করা তার মন্তব্যটি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে অনেক চর্চা হয়েছে। সেই ম্যাচে বাবরের সেঞ্চুরিতে তার দল পেশোয়ার জালমি নির্ধারিত ওভার শেষে ২৪০ রান তুলে। তবে প্রতিপক্ষ কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্স সেই বড় টার্গেটও সহজেই পেরিয়ে যায়। মূলত বাবরের পারফরম্যান্স ম্লান করে দেয় ইংলিশ ওপেনার জেসন রয়ের দুর্দান্ত সেঞ্চুরি। এরপরই ডুলের অভিযোগ, ‘দলকে আগে রাখা উচিত ছিল। শেষ দিকে সেটা হল না। হাতে উইকেট ছিল। তাও বাউন্ডারি মারার দিকে নজর দেয়নি বাবর। সেঞ্চুরি সবাই চায়। স্কোরবোর্ডে দেখতে ভাল লাগে। কিন্তু এক্ষেত্রে দলকে আগে রাখা উচিত।’

রইস/১০

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

খেলোয়াড়ের স্ত্রীকে দেখে ধারাভাষ্যকারের বেফাঁস মন্তব্য

আপডেট সময় : ১১:৪২:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩

স্পোর্টস ডেস্ক

পাকিস্তানের ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট আসর পিএসএলে একের পর এক বেফাঁস মন্তব্য করে চলেছেন কিউই ধারাভাষ্যকার সাইমন ডুল। এর আগে তিনি পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজমকে স্বার্থপর আখ্যা দিয়েছিলেন। এবার সেই সীমাও ছাড়ালেন তিনি। ম্যাচ চলাকালেই ডুল দেশটির পেসার হাসান আলীর স্ত্রীকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন।

ম্যাচের টান টান পরিস্থিতিতে উত্তেজনার পারদ আরও বাড়িয়ে দেন ধারাভাষ্যকাররা। খেলার অবস্থার সঙ্গে তাল মিলিয়ে তাদের মন্তব্যও হয়ে থাকে প্রাসঙ্গিক। পরবর্তীতে ধারাভাষ্যকারদের করা সেসব মন্তব্য স্মরণীয় হয়ে ওঠে।

ঘটনাটি ঘটেছে পিএসএলে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড এবং মুলতান সুলতানের মধ্যে ম্যাচের সময়কার। সেই ম্যাচে মুলতানকে হারিয়ে দেয় ইসলামাবাদ। মুলতানের দেওয়া ২০৬ রানের টার্গেট তাড়া করে হাসান আলীরা দুই উইকেটে জয় পায়। তবে তিনি একাদশে না থাকলেও দলের জয়ে অন্য সবার সঙ্গে উদযাপন করেন তার স্ত্রী সামিয়া আরজু।

তখনই সামিয়াকে দেখে নিউজিল্যান্ডের ধারাভাষ্যকার সাইমন ডুল বলে উঠেন, ‘ওয়াও ওয়াও। উনি জিতে নিয়েছেন। আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি, তিনি বেশ কয়েকজনের হৃদয়ও জিতে নিয়েছেন। দুর্দান্ত। অপূর্ব। জয়টাও দুর্দান্ত।’ তবে তার সেই ধারাভাষ্যের ভিডিওটি ছড়াতে তেমন সময় লাগেনি।

সামাজিক মাধ্যমে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনাও তৈরি হয়েছে। তার এই মন্তব্য নিছক প্রশংসা হিসেবে দেখতে নারাজ ভক্তদের অনেকেই। তাদের মতে ডুলের মন্তব্যে ক্রিকেটারের স্ত্রীর প্রতি অশালীন ইঙ্গিত রয়েছে। আবার কারও মতে, তার মন্তব্যে লালসা কাজ করেছে। ক্রিকেট ধারাবিবরণীতে এরকম মন্তব্য করা ডুলের উচিত হয়নি।

এর আগে বাবরের খেলা নিয়ে সমালোচনা করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের সাবেক এই ক্রিকেটার। ৩২টি টেস্ট এবং ৪২টি ওয়ানডে ম্যাচে তিনি ১৩৪টি উইকেট পেয়েছিলেন। ২০০০ সালে ক্রিকেট ছাড়লেও এরপর থেকে তিনি ধারাভাষ্যকারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

বাবরকে নিয়েও করা তার মন্তব্যটি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে অনেক চর্চা হয়েছে। সেই ম্যাচে বাবরের সেঞ্চুরিতে তার দল পেশোয়ার জালমি নির্ধারিত ওভার শেষে ২৪০ রান তুলে। তবে প্রতিপক্ষ কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্স সেই বড় টার্গেটও সহজেই পেরিয়ে যায়। মূলত বাবরের পারফরম্যান্স ম্লান করে দেয় ইংলিশ ওপেনার জেসন রয়ের দুর্দান্ত সেঞ্চুরি। এরপরই ডুলের অভিযোগ, ‘দলকে আগে রাখা উচিত ছিল। শেষ দিকে সেটা হল না। হাতে উইকেট ছিল। তাও বাউন্ডারি মারার দিকে নজর দেয়নি বাবর। সেঞ্চুরি সবাই চায়। স্কোরবোর্ডে দেখতে ভাল লাগে। কিন্তু এক্ষেত্রে দলকে আগে রাখা উচিত।’

রইস/১০