ঢাকা ০৪:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

১০৩ দেশের নাগরিক ভিসা ছাড়া যেতে পারবেন ওমান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১১:২০:৫৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ ২০২৩ ১১৯ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে বেড়েছে পর্যটকের সংখ্যা। ভিসা ছাড়া ১০৩ দেশের নাগরিকদের প্রবেশের সুযোগ দেওয়ার পরই দেশটির পর্যটন শিল্পে আরও উন্নতি হয়েছে। এসব দেশের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া ১৪ দিন ওমানে থাকতে পারেন।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্ট্যাটিস্টিকস অ্যান্ড ইনফরমেশন (এনসিএসআই) এর জারি করা সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে, ওমানে ২০২২ সালে ২৯ লাখ পর্যটক ভ্রমণ করে। এটি এক বছর আগের তুলনায় ৩৪৮ শতাংশ বেশি।

টাইমস অব ওমানের খবরে বলা হয়েছে, পর্যটকদের আগমনে ৩-৫ তারকা হোটেলগুলোর আয় ২০২২ সালের জানুয়ারির তুলনায় ২০২৩ সালের জানুয়ারি শেষে ৫০.৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর পরিমাণ ২০.৭৯ মিলিয়ন ওমানি রিয়াল।

ওমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভারতীয় পর্যটকরাও ৩০ দেশের মধ্যে রয়েছেন, যারা ভিসা ছাড়া শর্তসাপেক্ষে ওমানে প্রবেশের অনুমতি পান। এক্ষেত্রে তাদের পাসপোর্টে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, শেনজেনের ভিসা থাকা বাধ্যতামূলক।’

এই তালিকায় ভারত ছাড়াও বাকি ২৯ দেশ হলো- আর্মেনিয়া, আজারবাইজান, এল সালভাদর, কোস্টা রিকা, নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস, আলবেনিয়া, লাওস, কিরগিজস্তান, মেক্সিকো, ভিয়েতনাম, ভুটান, গুয়াতেমালা, বেলারুশ, কিউবা, পানামা, পেরু, তাজিকিস্তান, উজবেকিস্তান, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, কাজাখস্তান, মালদ্বীপ, জর্ডান, তিউনিসিয়া, আলজেরিয়া, মৌরিতানিয়া, মরক্কো এবং মিশর।

ওমানের কর্মকর্তারা বলেছেন, নির্দিষ্ট শর্তে ১৪ দিনের বেশি থাকারও সুযোগ রয়েছে। এক্ষেত্রে একটি ফি দিয়ে ভিসা-মুক্ত থাকার মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে। নির্দিষ্ট কিছু দেশের নাগরিকরা এই সুযোগ পেতে পারেন।

এক কর্মকর্ত বলেন, দেশগুলোর ভ্রমণকারীদের এক মাসের জন্য ২০ ওমানি রিয়াল ফি দিয়ে ই-ভিসার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে। তারা এক বছরের জন্য মাল্টি-এন্ট্রি ভিসার জন্যও আবেদন করতে পারেন, তবে শর্ত থাকে যে প্রতি সফরে থাকার সময় এক মাসের বেশি হবে না।

এছাড়াও বেশ কয়েকটি দেশ রয়েছে যাদের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া ওমানে ১৪ দিনের জন্য অবস্থান করতে পারেন। তাদের জন্য পাসপোর্টে কোনো দেশের ভিসা থাকা বাধ্যতামূলক নয়।

সেই দেশগুলো হলো- পর্তুগাল, সুইডেন, নরওয়ে, ইতালি, বুলগেরিয়া, সুইজারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, হাঙ্গেরি, সার্বিয়া, জর্জিয়া, ডেনমার্ক, জার্মানি, গ্রিস, আইসল্যান্ড, বেলজিয়াম, রোমানিয়া, স্লোভেনিয়া, ফিনল্যান্ড, লুক্সেমবার্গ, মাল্টা, মোনাকো, সাইপ্রাস, ইউক্রেন, স্পেন, চেক প্রজাতন্ত্র, অস্ট্রিয়া, আয়ারল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, ভেনিজুয়েলা, কলম্বিয়া, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়ে, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, জাপান, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, রাশিয়া, চীন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, ইরান, অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তাইওয়ান, কানাডা, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুর।

এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি দেশ রয়েছে যাদের নাগরিকদের এমন সুযোগ দিয়ে থাকে ওমান। পর্যটন শিল্প বিকাশের জন্য দেশটির সরকার এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

১০৩ দেশের নাগরিক ভিসা ছাড়া যেতে পারবেন ওমান

আপডেট সময় : ১১:২০:৫৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ ২০২৩

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে বেড়েছে পর্যটকের সংখ্যা। ভিসা ছাড়া ১০৩ দেশের নাগরিকদের প্রবেশের সুযোগ দেওয়ার পরই দেশটির পর্যটন শিল্পে আরও উন্নতি হয়েছে। এসব দেশের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া ১৪ দিন ওমানে থাকতে পারেন।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্ট্যাটিস্টিকস অ্যান্ড ইনফরমেশন (এনসিএসআই) এর জারি করা সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে, ওমানে ২০২২ সালে ২৯ লাখ পর্যটক ভ্রমণ করে। এটি এক বছর আগের তুলনায় ৩৪৮ শতাংশ বেশি।

টাইমস অব ওমানের খবরে বলা হয়েছে, পর্যটকদের আগমনে ৩-৫ তারকা হোটেলগুলোর আয় ২০২২ সালের জানুয়ারির তুলনায় ২০২৩ সালের জানুয়ারি শেষে ৫০.৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এর পরিমাণ ২০.৭৯ মিলিয়ন ওমানি রিয়াল।

ওমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভারতীয় পর্যটকরাও ৩০ দেশের মধ্যে রয়েছেন, যারা ভিসা ছাড়া শর্তসাপেক্ষে ওমানে প্রবেশের অনুমতি পান। এক্ষেত্রে তাদের পাসপোর্টে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, শেনজেনের ভিসা থাকা বাধ্যতামূলক।’

এই তালিকায় ভারত ছাড়াও বাকি ২৯ দেশ হলো- আর্মেনিয়া, আজারবাইজান, এল সালভাদর, কোস্টা রিকা, নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস, আলবেনিয়া, লাওস, কিরগিজস্তান, মেক্সিকো, ভিয়েতনাম, ভুটান, গুয়াতেমালা, বেলারুশ, কিউবা, পানামা, পেরু, তাজিকিস্তান, উজবেকিস্তান, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, কাজাখস্তান, মালদ্বীপ, জর্ডান, তিউনিসিয়া, আলজেরিয়া, মৌরিতানিয়া, মরক্কো এবং মিশর।

ওমানের কর্মকর্তারা বলেছেন, নির্দিষ্ট শর্তে ১৪ দিনের বেশি থাকারও সুযোগ রয়েছে। এক্ষেত্রে একটি ফি দিয়ে ভিসা-মুক্ত থাকার মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে। নির্দিষ্ট কিছু দেশের নাগরিকরা এই সুযোগ পেতে পারেন।

এক কর্মকর্ত বলেন, দেশগুলোর ভ্রমণকারীদের এক মাসের জন্য ২০ ওমানি রিয়াল ফি দিয়ে ই-ভিসার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে। তারা এক বছরের জন্য মাল্টি-এন্ট্রি ভিসার জন্যও আবেদন করতে পারেন, তবে শর্ত থাকে যে প্রতি সফরে থাকার সময় এক মাসের বেশি হবে না।

এছাড়াও বেশ কয়েকটি দেশ রয়েছে যাদের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া ওমানে ১৪ দিনের জন্য অবস্থান করতে পারেন। তাদের জন্য পাসপোর্টে কোনো দেশের ভিসা থাকা বাধ্যতামূলক নয়।

সেই দেশগুলো হলো- পর্তুগাল, সুইডেন, নরওয়ে, ইতালি, বুলগেরিয়া, সুইজারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, হাঙ্গেরি, সার্বিয়া, জর্জিয়া, ডেনমার্ক, জার্মানি, গ্রিস, আইসল্যান্ড, বেলজিয়াম, রোমানিয়া, স্লোভেনিয়া, ফিনল্যান্ড, লুক্সেমবার্গ, মাল্টা, মোনাকো, সাইপ্রাস, ইউক্রেন, স্পেন, চেক প্রজাতন্ত্র, অস্ট্রিয়া, আয়ারল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, ভেনিজুয়েলা, কলম্বিয়া, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়ে, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, জাপান, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, রাশিয়া, চীন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, ইরান, অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তাইওয়ান, কানাডা, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুর।

এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি দেশ রয়েছে যাদের নাগরিকদের এমন সুযোগ দিয়ে থাকে ওমান। পর্যটন শিল্প বিকাশের জন্য দেশটির সরকার এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে।