ঢাকা ০৫:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

মালয়েশিয়ায় বন্যা, ঘরছাড়া ৪০ হাজার মানুষ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৪৮:৪৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মার্চ ২০২৩ ১২০ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় সিঙ্গাপুর সীমান্তবর্তী মালয়েশিয়ার দক্ষিণের রাজ্য জোহোরের প্রায় ৪০ হাজার মানুষ ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা। বৃষ্টি-বন্যায় গত এক সপ্তাহে রাজ্যটিতে অন্তত চারজনের মৃত্যুও হয়েছে। শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে সেখানকার কর্মকর্তারা। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মালয়েশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা জানায়, বন্যায় ঘরছাড়াদের জন্য কর্তৃপক্ষ দুইশর বেশি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

জোহোরের বাটু পাহাট জেলার ইয়ং পেং শহরের ৫৭ বছর বয়সী বাসিন্দা মোহাম্মদ নুর রয়টার্সকে বলেন,“সাধারণত আমরা নভেম্বর-ডিসেম্বরের বর্ষাকালের জন্য প্রস্তুত থাকি। প্রতিটি পরিবারের একটি করে নৌকা থাকে। কিন্তু এখন যে অনিশ্চিত আবহাওয়া, মনে হচ্ছে, আমরা প্রস্তুত নই এবং পরিস্থিতি আরও বিশৃঙ্খল হয়ে উঠছে।”

অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে মালয়েশিয়ায় নিয়মিতই বন্যা দেখা যায়, কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে যে বর্ষণ হচ্ছে তাতে জোহোরের অসংখ্য বাসিন্দাকে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ছুটতে হচ্ছে।

জোহোর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য হলেও, সাম্প্রতিক বন্যা মালয়েশিয়ার অন্য রাজ্যের বাসিন্দাদেরও বিপাকে ফেলেছে, সেসব রাজ্যের অনেকেও ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় খুঁজছেন। আসছে দিনগুলোতে মালয়েশিয়াজুড়ে আরও বৃষ্টি দেখা যাবে বলে সতর্ক করেছে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ।

রইস/৪

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

মালয়েশিয়ায় বন্যা, ঘরছাড়া ৪০ হাজার মানুষ

আপডেট সময় : ০২:৪৮:৪৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মার্চ ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় সিঙ্গাপুর সীমান্তবর্তী মালয়েশিয়ার দক্ষিণের রাজ্য জোহোরের প্রায় ৪০ হাজার মানুষ ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা। বৃষ্টি-বন্যায় গত এক সপ্তাহে রাজ্যটিতে অন্তত চারজনের মৃত্যুও হয়েছে। শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে সেখানকার কর্মকর্তারা। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মালয়েশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা জানায়, বন্যায় ঘরছাড়াদের জন্য কর্তৃপক্ষ দুইশর বেশি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

জোহোরের বাটু পাহাট জেলার ইয়ং পেং শহরের ৫৭ বছর বয়সী বাসিন্দা মোহাম্মদ নুর রয়টার্সকে বলেন,“সাধারণত আমরা নভেম্বর-ডিসেম্বরের বর্ষাকালের জন্য প্রস্তুত থাকি। প্রতিটি পরিবারের একটি করে নৌকা থাকে। কিন্তু এখন যে অনিশ্চিত আবহাওয়া, মনে হচ্ছে, আমরা প্রস্তুত নই এবং পরিস্থিতি আরও বিশৃঙ্খল হয়ে উঠছে।”

অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে মালয়েশিয়ায় নিয়মিতই বন্যা দেখা যায়, কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে যে বর্ষণ হচ্ছে তাতে জোহোরের অসংখ্য বাসিন্দাকে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ছুটতে হচ্ছে।

জোহোর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য হলেও, সাম্প্রতিক বন্যা মালয়েশিয়ার অন্য রাজ্যের বাসিন্দাদেরও বিপাকে ফেলেছে, সেসব রাজ্যের অনেকেও ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় খুঁজছেন। আসছে দিনগুলোতে মালয়েশিয়াজুড়ে আরও বৃষ্টি দেখা যাবে বলে সতর্ক করেছে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ।

রইস/৪