ঢাকা ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

বিচ্ছেদের পর আত্মগোপনে গিয়েও রক্ষা পাচ্ছেনা তালেবান নারীরা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:২৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩ ১১৪ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

স্বামীর নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন আফগানিস্তানের মারওয়া। বছরের পর বছর ধরে সেই নির্যাতনের মাত্রা এতটাই প্রবল ছিল যে, মারওয়ার সবগুলো দাঁত ভেঙে যায়। তবে পাষণ্ড সেই স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়ার পর অসহায় এই নারী ভেবেছিলেন প্রাণে বেঁচে গেছেন। কিন্তু তালেবান কমান্ডাররা সেই বিবাহবিচ্ছেদ বাতিল করে দেওয়ায় ভয়ে ৮ সন্তানকে নিয়ে আত্মগোপনে যেতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

আফগানিস্তানের সেই নারীদের একজন মারওয়া (নিরাপত্তার কারণে ছদ্মনাম ব্যবহার করা হয়েছে) যার বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছিল। তবে ২০২১ সালে তালেবান দেশটির ক্ষমতায় এলে তার স্বামী দাবি করেন যে, তাকে তালাক দিতে বাধ্য করা হয়। ফলে তালেবান সদস্যরা মারওয়াকে স্বামীর কাছে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেন। খবর এনডিটিভির

মারওয়া বলেন, ‘স্বামী আমার মাথার চুল এত জোরে টানতেন যে, আমি আংশিক টাক হয়ে গিয়েছিলাম। তার মারধরে আমার সব দাঁত ভেঙে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাচ্চারা এখন বলে- মা, আমরা যদি অনাহারেও থাকি তাতেও সমস্যা নেই, অন্তত এই অমানবিক নির্যাতন থেকে তো মুক্তি পেয়েছি।’

আফগানিস্তানে তালেবানশাসিত সরকার ইসলামের কঠোর ব্যাখ্যা মেনে চলে এবং নারীদের জন্য তারা অতি কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, যাকে ‘লিঙ্গ-ভিত্তিক বর্ণবাদ’ বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ।

দেশটির আইনজীবীরা জানান, তালেবান সদস্যরা বিবাহবিচ্ছেদ বাতিল করে দেওয়ায় বেশ কয়েকজন নারীকে আবার তাদের স্বামীর কাছে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।

আফগানিস্তানে বিবাহবিচ্ছেদ নির্যাতনের অপরাধের চেয়েও অধিক ট্যাবু হিসেবে বিবেচিত এবং স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদে যাওয়া নারীদের ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখার সংস্কৃতি সেদেশে নেই।

রইস/৭

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

বিচ্ছেদের পর আত্মগোপনে গিয়েও রক্ষা পাচ্ছেনা তালেবান নারীরা

আপডেট সময় : ১০:২৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

স্বামীর নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন আফগানিস্তানের মারওয়া। বছরের পর বছর ধরে সেই নির্যাতনের মাত্রা এতটাই প্রবল ছিল যে, মারওয়ার সবগুলো দাঁত ভেঙে যায়। তবে পাষণ্ড সেই স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়ার পর অসহায় এই নারী ভেবেছিলেন প্রাণে বেঁচে গেছেন। কিন্তু তালেবান কমান্ডাররা সেই বিবাহবিচ্ছেদ বাতিল করে দেওয়ায় ভয়ে ৮ সন্তানকে নিয়ে আত্মগোপনে যেতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

আফগানিস্তানের সেই নারীদের একজন মারওয়া (নিরাপত্তার কারণে ছদ্মনাম ব্যবহার করা হয়েছে) যার বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছিল। তবে ২০২১ সালে তালেবান দেশটির ক্ষমতায় এলে তার স্বামী দাবি করেন যে, তাকে তালাক দিতে বাধ্য করা হয়। ফলে তালেবান সদস্যরা মারওয়াকে স্বামীর কাছে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেন। খবর এনডিটিভির

মারওয়া বলেন, ‘স্বামী আমার মাথার চুল এত জোরে টানতেন যে, আমি আংশিক টাক হয়ে গিয়েছিলাম। তার মারধরে আমার সব দাঁত ভেঙে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাচ্চারা এখন বলে- মা, আমরা যদি অনাহারেও থাকি তাতেও সমস্যা নেই, অন্তত এই অমানবিক নির্যাতন থেকে তো মুক্তি পেয়েছি।’

আফগানিস্তানে তালেবানশাসিত সরকার ইসলামের কঠোর ব্যাখ্যা মেনে চলে এবং নারীদের জন্য তারা অতি কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, যাকে ‘লিঙ্গ-ভিত্তিক বর্ণবাদ’ বলে অভিহিত করেছে জাতিসংঘ।

দেশটির আইনজীবীরা জানান, তালেবান সদস্যরা বিবাহবিচ্ছেদ বাতিল করে দেওয়ায় বেশ কয়েকজন নারীকে আবার তাদের স্বামীর কাছে ফিরে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।

আফগানিস্তানে বিবাহবিচ্ছেদ নির্যাতনের অপরাধের চেয়েও অধিক ট্যাবু হিসেবে বিবেচিত এবং স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদে যাওয়া নারীদের ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখার সংস্কৃতি সেদেশে নেই।

রইস/৭