ঢাকা ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

প্রাণঘাতী করোনায় বিশ্বজুড়ে সংক্রমণ-মৃত্যু অব্যাহত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০২:৪১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৪ মার্চ ২০২৩ ১১৮ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

শুক্রবার একক দেশ হিসেবে করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে একই দিন ১৪ হাজার ৫১৬ জন নতুন আক্রান্ত রোগী নিয়ে দৈনিক আক্রান্তের হিসেবে শীর্ষে অবস্থান করছে রাশিয়া। হামারির আড়াই বছর পেরিয়ে গেলেও শ্বাসতন্ত্রের প্রাণঘাতী রোগ করোনায় বিশ্বজুড়ে অব্যাহত আছে দৈনিক সংক্রমণ-মৃত্যু। তবে প্রথম দুই বছর, অর্থাৎ ২০২০ ও ’২১ সালের তুলনায় চলতি বছর অনেকটাই কমে এসেছে এ রোগে আক্রান্ত হওয়া ও প্রাণহানির হার।

শুক্রবার বিশ্বে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৯৩ হাজার ৭৮৬ জন এবং কোভিডজনিত অসুস্থতায় ভুগে মৃত্যু হয়েছে ৫১০ জনের। এছাড়া এদিন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪ জন। মহামারি শুরুর পর থেকে এ রোগে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হালনাগাদ সংখ্যা প্রকাশকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্স থেকে জানা গেছে এসব তথ্য।

শুক্রবার একক দেশ হিসেবে করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এ দিন কোভিডজনিত অসুস্থতায় মারা গেছেন ৯৩ জন এবং করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৪৮১ জন। অন্যদিকে একই দিন ১৪ হাজার ৫১৬ জন নতুন আক্রান্ত রোগী নিয়ে দৈনিক আক্রান্তের হিসেবে শীর্ষে অবস্থান করছে রাশিয়া। এছাড়া এদিন দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া ব্যতীত বিশ্বের আরও যেসব দেশে শুক্রবার সংক্রমণ-মৃত্যুর উচ্চহার দেখা গেছে, সেসব হলো— জাপান (মৃত ৬৭, নতুন আক্রান্ত ১০ হাজার ৫২২ জন), ব্রাজিল (মৃত ৪৬ জন, নতুন আক্রান্ত ৯ হাজার ২৬২ জন), তাইওয়ান (মৃত ৬২ জন, নতুন আক্রান্ত ১৩ হাজার ৮১৩ জন।

বিশ্বে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৮১৪ জন। এই রোগীদের মধ্যে করোনার মৃদু উপসর্গ বহন করছেন ২ কোটি ৩ লাখ ২৪ হাজার ১৭৬ জন এবং গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আছেন ৪০ হাজার ৬৪২ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে বিশ্বের প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাটিও ঘটেছিল চীনে। তারপর অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। পরিস্থিতি সামাল দিতে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

কিন্তু তাতেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় অবশেষে ওই বছরের ১১ মার্চ করোনাকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৬৮ কোটি ৫ লাখ ২৯ হাজার ৩৯৩ জন এবং এ রোগে মৃত্যু হয়েছে মোট ৬৭ লাখ ৫ হাজার ৫৪৪ জনের।

এছাড়া গত প্রায় তিন বছরে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ৬৫ কোটি ৩৩ লাখ ৬০ হাজার ৩১ জন।

এম.নাসির/৪

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

প্রাণঘাতী করোনায় বিশ্বজুড়ে সংক্রমণ-মৃত্যু অব্যাহত

আপডেট সময় : ০৭:০২:৪১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৪ মার্চ ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

শুক্রবার একক দেশ হিসেবে করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে একই দিন ১৪ হাজার ৫১৬ জন নতুন আক্রান্ত রোগী নিয়ে দৈনিক আক্রান্তের হিসেবে শীর্ষে অবস্থান করছে রাশিয়া। হামারির আড়াই বছর পেরিয়ে গেলেও শ্বাসতন্ত্রের প্রাণঘাতী রোগ করোনায় বিশ্বজুড়ে অব্যাহত আছে দৈনিক সংক্রমণ-মৃত্যু। তবে প্রথম দুই বছর, অর্থাৎ ২০২০ ও ’২১ সালের তুলনায় চলতি বছর অনেকটাই কমে এসেছে এ রোগে আক্রান্ত হওয়া ও প্রাণহানির হার।

শুক্রবার বিশ্বে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৯৩ হাজার ৭৮৬ জন এবং কোভিডজনিত অসুস্থতায় ভুগে মৃত্যু হয়েছে ৫১০ জনের। এছাড়া এদিন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪ জন। মহামারি শুরুর পর থেকে এ রোগে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হালনাগাদ সংখ্যা প্রকাশকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্স থেকে জানা গেছে এসব তথ্য।

শুক্রবার একক দেশ হিসেবে করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এ দিন কোভিডজনিত অসুস্থতায় মারা গেছেন ৯৩ জন এবং করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৪৮১ জন। অন্যদিকে একই দিন ১৪ হাজার ৫১৬ জন নতুন আক্রান্ত রোগী নিয়ে দৈনিক আক্রান্তের হিসেবে শীর্ষে অবস্থান করছে রাশিয়া। এছাড়া এদিন দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া ব্যতীত বিশ্বের আরও যেসব দেশে শুক্রবার সংক্রমণ-মৃত্যুর উচ্চহার দেখা গেছে, সেসব হলো— জাপান (মৃত ৬৭, নতুন আক্রান্ত ১০ হাজার ৫২২ জন), ব্রাজিল (মৃত ৪৬ জন, নতুন আক্রান্ত ৯ হাজার ২৬২ জন), তাইওয়ান (মৃত ৬২ জন, নতুন আক্রান্ত ১৩ হাজার ৮১৩ জন।

বিশ্বে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৮১৪ জন। এই রোগীদের মধ্যে করোনার মৃদু উপসর্গ বহন করছেন ২ কোটি ৩ লাখ ২৪ হাজার ১৭৬ জন এবং গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আছেন ৪০ হাজার ৬৪২ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে বিশ্বের প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাটিও ঘটেছিল চীনে। তারপর অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। পরিস্থিতি সামাল দিতে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

কিন্তু তাতেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় অবশেষে ওই বছরের ১১ মার্চ করোনাকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৬৮ কোটি ৫ লাখ ২৯ হাজার ৩৯৩ জন এবং এ রোগে মৃত্যু হয়েছে মোট ৬৭ লাখ ৫ হাজার ৫৪৪ জনের।

এছাড়া গত প্রায় তিন বছরে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ৬৫ কোটি ৩৩ লাখ ৬০ হাজার ৩১ জন।

এম.নাসির/৪