ঢাকা ০৭:১৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

নারীরা কর্মক্ষেত্রে এখনও অনেক পিছিয়ে : জাতিসংঘ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:০০:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩ ১১৯ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও বলেছেন, বিশ্বে নারীদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও নারী-পুরুষ বৈষম্য দূর করতে নানা পদক্ষেপ নেয়া হলেও কর্মক্ষেত্রে নারীরা এখনও অনেক পিছিয়ে রয়েছে। খবর টাইমস নাউয়ের।

সংস্থাটির সবশেষ পরিসংখ্যান ও তথ্য মতে, একটি চাকরি পেতে পুরুষদের তুলনায় নারীদের অনেক কষ্ট করতে হয়। পরিসংখ্যান বলছে, নারী-পুরুষের বেকারত্বের হার প্রায় সমান।

তবে আইএলও বলছে, বেকারত্বের হার দিয়ে কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের বৈষম্য নিখুঁতভাবে নির্ণয় করা সম্ভব নয়। এ অবস্থায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা এক নতুন নির্ধারক নির্ণয় করেছে, যা দিয়ে কত শতাংশ নারী পুরুষের কাজের ইচ্ছা আছে কতভাগ তা করতে পারছে সে পার্থক্য বের সম্ভব বলে জানায় তারা।

আইএলও’র পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বে ১৫ শতাংশ নারী কাজ করতে ইচ্ছুক, তবে কোনো না কোনো কারণে তা করতে পারছেন না। আর এ ক্ষেত্রে পুরুষের সংখ্যা ১০ দশমকি ৫ শতাংশ।

উন্নয়নশীল বা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে শুরু করে নিম্ন আয়ের দেশ সবখানেই নারী পুরুষের এই বৈষম্য রয়েছে। তবে নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে এই চিত্র আরও ভয়াবহ। নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে কাজ করতে ইচ্ছুক হলেও করতে পারছেন না এমন নারীর সংখ্যা ২৪ দশমিক ৯ শতাংশ। আর পুরুষের ক্ষেত্রে এটি ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ।

এ অবস্থার জন্য পারিবারিক দায়বদ্ধতা ও সামাজিক বাধাকে দায়ী করছে সংস্থাটি। এ দায়বদ্ধতা তাদের শুধু কাজ করা থেকেই বিরত রাখছে না বরং কাজ খুঁজতেও নিরুৎসাহিত করছে। অন্যদিকে বেকারত্বের হারে সেসব নারীদের উল্লেখ থাকে না যারা কাজ করতে চায় কিন্তু পারছে না।

বর্তমানে বিশ্বে গড়ে পুরুষরা এক ডলার আয় করলেও নারীরা করছে মাত্র ৫১ সেন্ট। নতুন এই প্রতিবেদন মূলত আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে কর্মক্ষেত্রে নারীদের অবস্থা কতটা করুণ। একইসঙ্গে নারীদের কর্মক্ষেত্রে উন্নয়নের পাশাপাশি নারী-পুরুষের লুকিয়ে থাকা বৈষম্যকেও বের করে নিয়ে এসেছে নতুন এই নির্ণায়ক।

রইস/৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

নারীরা কর্মক্ষেত্রে এখনও অনেক পিছিয়ে : জাতিসংঘ

আপডেট সময় : ০৩:০০:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও বলেছেন, বিশ্বে নারীদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও নারী-পুরুষ বৈষম্য দূর করতে নানা পদক্ষেপ নেয়া হলেও কর্মক্ষেত্রে নারীরা এখনও অনেক পিছিয়ে রয়েছে। খবর টাইমস নাউয়ের।

সংস্থাটির সবশেষ পরিসংখ্যান ও তথ্য মতে, একটি চাকরি পেতে পুরুষদের তুলনায় নারীদের অনেক কষ্ট করতে হয়। পরিসংখ্যান বলছে, নারী-পুরুষের বেকারত্বের হার প্রায় সমান।

তবে আইএলও বলছে, বেকারত্বের হার দিয়ে কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের বৈষম্য নিখুঁতভাবে নির্ণয় করা সম্ভব নয়। এ অবস্থায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা এক নতুন নির্ধারক নির্ণয় করেছে, যা দিয়ে কত শতাংশ নারী পুরুষের কাজের ইচ্ছা আছে কতভাগ তা করতে পারছে সে পার্থক্য বের সম্ভব বলে জানায় তারা।

আইএলও’র পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বে ১৫ শতাংশ নারী কাজ করতে ইচ্ছুক, তবে কোনো না কোনো কারণে তা করতে পারছেন না। আর এ ক্ষেত্রে পুরুষের সংখ্যা ১০ দশমকি ৫ শতাংশ।

উন্নয়নশীল বা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে শুরু করে নিম্ন আয়ের দেশ সবখানেই নারী পুরুষের এই বৈষম্য রয়েছে। তবে নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে এই চিত্র আরও ভয়াবহ। নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে কাজ করতে ইচ্ছুক হলেও করতে পারছেন না এমন নারীর সংখ্যা ২৪ দশমিক ৯ শতাংশ। আর পুরুষের ক্ষেত্রে এটি ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ।

এ অবস্থার জন্য পারিবারিক দায়বদ্ধতা ও সামাজিক বাধাকে দায়ী করছে সংস্থাটি। এ দায়বদ্ধতা তাদের শুধু কাজ করা থেকেই বিরত রাখছে না বরং কাজ খুঁজতেও নিরুৎসাহিত করছে। অন্যদিকে বেকারত্বের হারে সেসব নারীদের উল্লেখ থাকে না যারা কাজ করতে চায় কিন্তু পারছে না।

বর্তমানে বিশ্বে গড়ে পুরুষরা এক ডলার আয় করলেও নারীরা করছে মাত্র ৫১ সেন্ট। নতুন এই প্রতিবেদন মূলত আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে কর্মক্ষেত্রে নারীদের অবস্থা কতটা করুণ। একইসঙ্গে নারীদের কর্মক্ষেত্রে উন্নয়নের পাশাপাশি নারী-পুরুষের লুকিয়ে থাকা বৈষম্যকেও বের করে নিয়ে এসেছে নতুন এই নির্ণায়ক।

রইস/৮