ঢাকা ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

আফগানিস্তানে গম পাঠাচ্ছে ভারত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:২০:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩ ১২৩ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

আর্থিক ও মানবিক সংকটের মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান। মানবিক সংকট উত্তরণে ভারত সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে ২০ হাজার টন মেট্রিক টন গম পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে।

২০২১ সালে সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবান ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই সেই সংকট কেবলই বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ভারত।

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত পাঁচ দেশের বৈঠকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। ভারতীয় বার্তাসংস্থা পিটিআইয়ের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার (৭ মার্চ) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে আফগানিস্তানে ভারত-মধ্য এশিয়া যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ভারত এবং পাঁচটি মধ্য এশিয়ার দেশ জোর দিয়ে জানায়, আফগানিস্তানের মাটি কোনও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

একইসঙ্গে এই বৈঠক থেকে কাবুলে ‘সত্যিকারের অন্তর্ভুক্তিমূলক’ এমন একটি রাজনৈতিক কাঠামো গঠনের আহ্বান জানানো হয় যা নারী ও সংখ্যালঘুসহ সকল আফগান নাগরিকের অধিকারকে সম্মান করবে।

এছাড়া এই বৈঠকেই আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর কথা ঘোষণা করে ভারত। এসব গম ইরানের চাবাহার বন্দরের মাধ্যমে পাঠানো হবে বলেও জানানো হয়।

সংবাদমাধ্যম বলছে, মঙ্গলবার কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, উজবেকিস্তান, তাজিকিস্তান এবং তুর্কমেনিস্তানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে ভারত। এছাড়া বৈঠকে জাতিসংঘের মাদক এবং অপরাধ (ইউএনওডিসি) দপ্তরের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

ভারত-মধ্য এশিয়ার যৌথ ওই বৈঠকেই নয়াদিল্লি আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর কথা ঘোষণা করে। একইসঙ্গে আফগানিস্তানের প্রশাসনে আরও উন্নতি করার আহ্বান জানিয়েছে ভারত।

মূলত সাম্প্রতিক অতীতে আফগানিস্তানের মানবিক সংকট গোটা বিশ্বের উদ্বেগ বাড়িয়েছে। একদিকে তীব্র খাদ্য সংকট, অন্যদিকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ফলে সাধারণ আফগান বিশেষ করে নারীদের চরম দুর্দশার ছবি সামনে এসেছে।

তবে ভারত আফগানিস্তানে সেই পরিস্থিতির পরিবর্তনের ডাক দিচ্ছে। এরই পাশাপাশি আফগানিস্তানকে কখনোই যেন সন্ত্রাসীদের আশ্রয়, প্রশিক্ষণ, পরিকল্পনা কিংবা অন্য কোনও কাজে ব্যবহার না করা হয়, সে বিষয়েও জোর দিচ্ছে নয়াদিল্লি।

এর আগে গত মাসে বাজেট বক্তৃতায় আফগানিস্তানকে ২৫ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন ভারতীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। পরে তালেবান সরকারের মুখপাত্র সোহেল শাহিন নয়াদিল্লির সহায়তার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান।

সেসময় তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তানকে দেওয়া ভারতের সহায়তা প্যাকেজে আমরা খুশি। এর ফলে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরও উন্নত হবে।’

উল্লেখ্য, ২০ বছর পর ২০২১ সালের ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান দখলে নেয় তালেবান। এরপর সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে তালেবান অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রথম মন্ত্রিসভার ঘোষণা দেয়। অবশ্য সরকার গঠন করলেও বিশ্বের কোনো দেশই এখনও পর্যন্ত তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি।

আর এর জেরে বিশ্বের অধিকাংশ দেশ ও এর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বিভিন্ন দাতা সংস্থাও আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তাসহ অর্থ সাহায্য পাঠানো বন্ধ করে দেয়।

আর তাই আফগানিস্তান বর্তমানে মানবিক সংকটের মধ্যে রয়েছে এবং এশিয়ার এই দেশটির ৩ কোটি ৮০ লাখ জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি খাদ্য সংকটের সম্মুখীন। এছাড়া পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং তালেবান প্রশাসনের আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা এই পরিস্থিতিকে আরও খারাপ করে তুলেছে।

এম.নাসির/৮

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আফগানিস্তানে গম পাঠাচ্ছে ভারত

আপডেট সময় : ১০:২০:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ মার্চ ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

আর্থিক ও মানবিক সংকটের মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান। মানবিক সংকট উত্তরণে ভারত সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে ২০ হাজার টন মেট্রিক টন গম পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে।

২০২১ সালে সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবান ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই সেই সংকট কেবলই বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ভারত।

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত পাঁচ দেশের বৈঠকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। ভারতীয় বার্তাসংস্থা পিটিআইয়ের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার (৭ মার্চ) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে আফগানিস্তানে ভারত-মধ্য এশিয়া যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ভারত এবং পাঁচটি মধ্য এশিয়ার দেশ জোর দিয়ে জানায়, আফগানিস্তানের মাটি কোনও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

একইসঙ্গে এই বৈঠক থেকে কাবুলে ‘সত্যিকারের অন্তর্ভুক্তিমূলক’ এমন একটি রাজনৈতিক কাঠামো গঠনের আহ্বান জানানো হয় যা নারী ও সংখ্যালঘুসহ সকল আফগান নাগরিকের অধিকারকে সম্মান করবে।

এছাড়া এই বৈঠকেই আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর কথা ঘোষণা করে ভারত। এসব গম ইরানের চাবাহার বন্দরের মাধ্যমে পাঠানো হবে বলেও জানানো হয়।

সংবাদমাধ্যম বলছে, মঙ্গলবার কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, উজবেকিস্তান, তাজিকিস্তান এবং তুর্কমেনিস্তানের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে ভারত। এছাড়া বৈঠকে জাতিসংঘের মাদক এবং অপরাধ (ইউএনওডিসি) দপ্তরের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

ভারত-মধ্য এশিয়ার যৌথ ওই বৈঠকেই নয়াদিল্লি আফগানিস্তানে ২০ হাজার মেট্রিক টন গম পাঠানোর কথা ঘোষণা করে। একইসঙ্গে আফগানিস্তানের প্রশাসনে আরও উন্নতি করার আহ্বান জানিয়েছে ভারত।

মূলত সাম্প্রতিক অতীতে আফগানিস্তানের মানবিক সংকট গোটা বিশ্বের উদ্বেগ বাড়িয়েছে। একদিকে তীব্র খাদ্য সংকট, অন্যদিকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ফলে সাধারণ আফগান বিশেষ করে নারীদের চরম দুর্দশার ছবি সামনে এসেছে।

তবে ভারত আফগানিস্তানে সেই পরিস্থিতির পরিবর্তনের ডাক দিচ্ছে। এরই পাশাপাশি আফগানিস্তানকে কখনোই যেন সন্ত্রাসীদের আশ্রয়, প্রশিক্ষণ, পরিকল্পনা কিংবা অন্য কোনও কাজে ব্যবহার না করা হয়, সে বিষয়েও জোর দিচ্ছে নয়াদিল্লি।

এর আগে গত মাসে বাজেট বক্তৃতায় আফগানিস্তানকে ২৫ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন ভারতীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। পরে তালেবান সরকারের মুখপাত্র সোহেল শাহিন নয়াদিল্লির সহায়তার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান।

সেসময় তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তানকে দেওয়া ভারতের সহায়তা প্যাকেজে আমরা খুশি। এর ফলে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরও উন্নত হবে।’

উল্লেখ্য, ২০ বছর পর ২০২১ সালের ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান দখলে নেয় তালেবান। এরপর সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে তালেবান অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রথম মন্ত্রিসভার ঘোষণা দেয়। অবশ্য সরকার গঠন করলেও বিশ্বের কোনো দেশই এখনও পর্যন্ত তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দেয়নি।

আর এর জেরে বিশ্বের অধিকাংশ দেশ ও এর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বিভিন্ন দাতা সংস্থাও আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তাসহ অর্থ সাহায্য পাঠানো বন্ধ করে দেয়।

আর তাই আফগানিস্তান বর্তমানে মানবিক সংকটের মধ্যে রয়েছে এবং এশিয়ার এই দেশটির ৩ কোটি ৮০ লাখ জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি খাদ্য সংকটের সম্মুখীন। এছাড়া পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং তালেবান প্রশাসনের আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা এই পরিস্থিতিকে আরও খারাপ করে তুলেছে।

এম.নাসির/৮