ঢাকা ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ

মুশতাক ও ফাওজিয়ার মামলা তদন্ত করবে পিবিআই

আদালত প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৫:৪০:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪ ১১৬ বার পড়া হয়েছে

- মুশতাক ও ফাওজিয়া (ফাইল ছবি)

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
Mushtaq-Fawzia:
রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে, করা মামলায় পরিচালনা কমিটির দাতা সদস্য খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও কলেজের অধ্যক্ষ ফাওজিয়া রাশেদীকে অব্যাহতির সুপারিশ করে পুলিশের দেয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে দেয়া বাদীর নারাজি গ্রহণ করেছেন আদালত। মামলার বাদী হলেন, ওই শিক্ষার্থীর বাবা মো. সাইফুল ইসলাম।
অপরদিকে, মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ১৪ মার্চ, ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ এর বিচারক শওকত আলী এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে ওই প্রতিবেদন আগামী ২৯ এপ্রিল আদালতে দাখিল করতে বলা হয়েছে।
এর আগে ৩ মার্চ ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ এর বিচারক শওকত আলীর আদালতে এ নারাজি দাখিল করেন মামলার বাদী। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে এ বিষয় আদেশের জন্য আগামী ১৪ মার্চ দিন ধার্য করেন। ওই শিক্ষার্থীর বাবা গত বছরের ১ আগস্ট আদালতে মামলাটি করেন।
মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, তার মেয়ে (ভুক্তভোগী) মতিঝিল আইডিয়ালের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। আসামি মুশতাক বিভিন্ন অজুহাতে কলেজে আসতেন এবং ভুক্তভোগীকে ক্লাস থেকে প্রিন্সিপালের কক্ষে ডেকে নিতেন। খোঁজখবর নেয়ার নামে আসামি ভুক্তভোগীকে বিভিন্নভাবে প্রলোভন দেখিয়ে প্রলুব্ধ করতেন। কিছুদিন পর আসামি মুশতাক ভুক্তভোগীকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কুপ্রস্তাব দেন। এতে রাজি না হওয়ায় ভুক্তভোগীকে তুলে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করেন।
/আবদুর রহমান খান/

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ

মুশতাক ও ফাওজিয়ার মামলা তদন্ত করবে পিবিআই

আপডেট সময় : ০৫:৪০:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪
Mushtaq-Fawzia:
রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে, করা মামলায় পরিচালনা কমিটির দাতা সদস্য খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও কলেজের অধ্যক্ষ ফাওজিয়া রাশেদীকে অব্যাহতির সুপারিশ করে পুলিশের দেয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে দেয়া বাদীর নারাজি গ্রহণ করেছেন আদালত। মামলার বাদী হলেন, ওই শিক্ষার্থীর বাবা মো. সাইফুল ইসলাম।
অপরদিকে, মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ১৪ মার্চ, ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ এর বিচারক শওকত আলী এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে ওই প্রতিবেদন আগামী ২৯ এপ্রিল আদালতে দাখিল করতে বলা হয়েছে।
এর আগে ৩ মার্চ ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮ এর বিচারক শওকত আলীর আদালতে এ নারাজি দাখিল করেন মামলার বাদী। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে এ বিষয় আদেশের জন্য আগামী ১৪ মার্চ দিন ধার্য করেন। ওই শিক্ষার্থীর বাবা গত বছরের ১ আগস্ট আদালতে মামলাটি করেন।
মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, তার মেয়ে (ভুক্তভোগী) মতিঝিল আইডিয়ালের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। আসামি মুশতাক বিভিন্ন অজুহাতে কলেজে আসতেন এবং ভুক্তভোগীকে ক্লাস থেকে প্রিন্সিপালের কক্ষে ডেকে নিতেন। খোঁজখবর নেয়ার নামে আসামি ভুক্তভোগীকে বিভিন্নভাবে প্রলোভন দেখিয়ে প্রলুব্ধ করতেন। কিছুদিন পর আসামি মুশতাক ভুক্তভোগীকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কুপ্রস্তাব দেন। এতে রাজি না হওয়ায় ভুক্তভোগীকে তুলে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করেন।
/আবদুর রহমান খান/