ঢাকা ০৫:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

ব্যবসায়ী বুলুর দুর্নীতি মামলার বিচার ১ বছরে শেষ করার নির্দেশ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:২৩:৩২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩ ১২৫ বার পড়া হয়েছে
নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক

১০৯ কোটি টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং প্রায় ২৫ কোটি টাকা জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ব্যবসায়ী এম এন এইচ বুলুর বিরুদ্ধে করা মামলা চলবে এবং এক বছরের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

ব্যবসায়ী বুলুর বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে করা চার্জের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন খারিজ করে সোমবার (৬ মার্চ) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের দ্বৈত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

পিটিশনার পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র এডভোকেট মনসুরুল হক চৌধুরী ও মো. বোরহান খান। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো খুরশিদ আলম খান, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলি ও মো. সাইফুর রহমান সিদ্দিকী সাইফ।

মামলার এজাহারে বলা হয়, দুদকের নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে এম এন এইচ বুলু ২০১৬ সালের ২০ এপ্রিল দুদকের একটি সম্পদ বিবরণী জমা দেন। তাতে ২৫৭ কোটি ৮০ লাখ ৬১ হাজার ৮৪৬ টাকার স্থাবর সম্পদ এবং ৬০ কোটি ৩৩ লাখ ৭৭ হাজার ৫ টাকার অস্থাবর সম্পদ দেখিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি ৩৬৯ কোটি ৭০ লাখ ১৫ হাজার ১৫৭ টাকার দায়-দেনার তথ্যও দিয়েছেন।

সম্পদ বিবরণীর তথ্য যাচাইয়ের সময় দেখা গেছে, তার স্থাবর সম্পদের হিসাব ঠিক রয়েছে। অস্থাবর সম্পদ যাচাইকালে দেখা যায়, তিনি জমা দেওয়া সম্পদ বিবরণীতে নিজ ও নিজ নামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক সমাপনী উদ্বৃত্ত এবং প্রতিষ্ঠানসমূহের দায়-দেনা দেখালেও ব্যবসায়িক পুঁজির হাতে নগদ বা লিকুইড অংশ দেখাননি।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, তিনি ১০৯ কোটি ১৭ লাখ ৫৬ হাজার ৯৮১ টাকা মূল্যমানের সম্পদের তথ্য গোপন গোপন করেছেন। এ ছাড়া ২৪ কোটি ৭৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬২২ টাকা মূল্যমানের জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে তা ভোগদখলে রেখেছেন।

ভিত্তিহীন ও মিথ্যা তথ্য সংবলিত সম্পদ বিবরণী দাখিল এবং জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারায় দুদকের উপপরিচালক ওয়াকিল আহমেদ রমনা মডেল থানায় ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক ২০২২ সালের ৮ মার্চ অভিযোগ পত্র দায়ের করেন। মামলাটি বিশেষ জজ আদালত-৮ এ বিচারাধীন আছে। গত ৩১ জানুয়ারী বিচারিক আদালত তার বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে।

রইস/৬

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ব্যবসায়ী বুলুর দুর্নীতি মামলার বিচার ১ বছরে শেষ করার নির্দেশ

আপডেট সময় : ০৯:২৩:৩২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

১০৯ কোটি টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং প্রায় ২৫ কোটি টাকা জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ব্যবসায়ী এম এন এইচ বুলুর বিরুদ্ধে করা মামলা চলবে এবং এক বছরের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

ব্যবসায়ী বুলুর বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে করা চার্জের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন খারিজ করে সোমবার (৬ মার্চ) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের দ্বৈত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

পিটিশনার পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র এডভোকেট মনসুরুল হক চৌধুরী ও মো. বোরহান খান। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো খুরশিদ আলম খান, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলি ও মো. সাইফুর রহমান সিদ্দিকী সাইফ।

মামলার এজাহারে বলা হয়, দুদকের নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে এম এন এইচ বুলু ২০১৬ সালের ২০ এপ্রিল দুদকের একটি সম্পদ বিবরণী জমা দেন। তাতে ২৫৭ কোটি ৮০ লাখ ৬১ হাজার ৮৪৬ টাকার স্থাবর সম্পদ এবং ৬০ কোটি ৩৩ লাখ ৭৭ হাজার ৫ টাকার অস্থাবর সম্পদ দেখিয়েছেন। এ ছাড়া তিনি ৩৬৯ কোটি ৭০ লাখ ১৫ হাজার ১৫৭ টাকার দায়-দেনার তথ্যও দিয়েছেন।

সম্পদ বিবরণীর তথ্য যাচাইয়ের সময় দেখা গেছে, তার স্থাবর সম্পদের হিসাব ঠিক রয়েছে। অস্থাবর সম্পদ যাচাইকালে দেখা যায়, তিনি জমা দেওয়া সম্পদ বিবরণীতে নিজ ও নিজ নামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক সমাপনী উদ্বৃত্ত এবং প্রতিষ্ঠানসমূহের দায়-দেনা দেখালেও ব্যবসায়িক পুঁজির হাতে নগদ বা লিকুইড অংশ দেখাননি।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, তিনি ১০৯ কোটি ১৭ লাখ ৫৬ হাজার ৯৮১ টাকা মূল্যমানের সম্পদের তথ্য গোপন গোপন করেছেন। এ ছাড়া ২৪ কোটি ৭৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬২২ টাকা মূল্যমানের জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে তা ভোগদখলে রেখেছেন।

ভিত্তিহীন ও মিথ্যা তথ্য সংবলিত সম্পদ বিবরণী দাখিল এবং জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, ২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারায় দুদকের উপপরিচালক ওয়াকিল আহমেদ রমনা মডেল থানায় ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক ২০২২ সালের ৮ মার্চ অভিযোগ পত্র দায়ের করেন। মামলাটি বিশেষ জজ আদালত-৮ এ বিচারাধীন আছে। গত ৩১ জানুয়ারী বিচারিক আদালত তার বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে।

রইস/৬