ঢাকা ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

বাজেট ২০২৪-২৫ : পণ্যের দাম বাড়তে পারে

ডেস্ক প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১০:১৩:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ জুন ২০২৪ ৬০ বার পড়া হয়েছে

বাজেট ২০২৪-২৫

নিউজ ফর জাস্টিস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

Budget 2024-25 :  আগামী অর্থবছরের (২০২৪-২৫) বাজেটে বেশ কিছু পণ্য ও পরিষেবার ওপর শুল্ক আরোপ করা হতে পারে। এতে আইসক্রিম, পানীয়, ইট, এলইডি বাল্ব, তামাকজাত দ্রব্য ইত্যাদির দাম বাড়তে পারে। অর্থ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দায়িত্বশীল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সিগারেট উৎপাদন পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক ও মূল্যের মাত্রা বাড়ানো হতে পারে। তিন স্তরের সিগারেটের ওপর ৬৫.৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে সব ধরনের সিগারেটের দাম বাড়তে পারে। প্রতি ১০ গ্রাম জর্দার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৪৮ টাকা এবং একই পরিমাণ গুলের দাম ২৫ টাকা। যারা পান-জর্দা খাওয়ার অভ্যাস তাদের খরচ বাড়বে।

গৃহস্থালির পানির ফিল্টার আমদানিতে শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। দেশে উৎপাদনের কারণে ওয়াটার ফিল্টার আমদানিতে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হতে পারে। বিদ্যুৎ বিল বাঁচাতে অনেকেই বাড়িতে এলইডি বাল্ব ব্যবহার করেন। এলইডি বাল্ব ও এনার্জি সেভিং বাল্বের আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ বাড়ানো হতে পারে।

কাজুবাদাম চাষ রক্ষার অংশ হিসেবে খোসাযুক্ত কাজুবাদামের আমদানি শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হচ্ছে। ফলে আমদানি করা কাজুবাদামের দাম বাড়তে পারে। দেশে ফ্রিজ-এসি তৈরিতে ব্যবহৃত কম্প্রেসার ও সব ধরনের উপকরণের ওপর ভ্যাট ও শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। তাই এসি ও ফ্রিজের দাম বাড়তে পারে। LRPC তার আমদানিতে শুল্ক বাড়াতে পারে। তাহলে নির্মাণ খাতে খরচ বাড়বে।

বিদ্যুতের বড় ক্ষতি, পানি বিক্রি করে লাভ আসবে

যানবাহন সিএনজি-এলপিজিতে রূপান্তরের জন্য ব্যবহৃত কিট, সিলিন্ডার ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ আমদানিতে শুল্ক ৩ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হচ্ছে। যানবাহন পরিবর্তনের খরচ বাড়তে পারে। আবার লোডশেডিং মোকাবিলায় বাসাবাড়ি বা শিল্প-কারখানায় জেনারেটরের ব্যবহার বাড়ছে। সেদিকেও নজর দিয়েছে এনবিআর। সমাবেশ ও জেনারেটর তৈরিতে ব্যবহৃত উপকরণ বা যন্ত্রাংশ আমদানিতে এক শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হচ্ছে। অভ্যন্তরীণ বাজারে জেনারেটরের দাম বাড়তে পারে। আমদানি করা ম্যাকরেল মাছের ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর যোগ করলে দাম বাড়তে পারে।

শিল্পে ব্যবহৃত ৩৩টি পণ্যের কাঁচামাল আমদানিতে এক শতাংশ শুল্ক ধার্য করা হচ্ছে। এই তালিকায় রয়েছে অশোধিত ভোজ্য তেল, শিরিষ কাগজ তৈরিতে ব্যবহৃত টিউব লিসেনিং জেল, কৃত্রিম কোরান্ডাম, অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড, প্যাট চিপস তৈরিতে ব্যবহৃত ইথিলিন গ্লাইকল, জলের মোটর তৈরিতে ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়াম ইঙ্গট, ফ্লুরোসেন্ট ল্যাম্পের উপাদান, গ্লাস, প্লাস্টিক, LED বাল্ব LED টেলিভিশন, বাতি উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়। ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়াম খাদ ইত্যাদির দাম বাড়তে পারে।

অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে শিল্প প্রতিষ্ঠানের মূলধনী যন্ত্রাংশ ও নির্মাণসামগ্রীর আমদানি প্রত্যাহার করে ১ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হচ্ছে। এ ছাড়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়নে ডেভেলপারের আনা ব্যবহৃত উপকরণের ওপর এক শতাংশ শুল্ক আরোপ এবং অর্থনৈতিক অঞ্চলে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানগুলোর শুল্কমুক্ত সুবিধায় গাড়ি আমদানির সুযোগ বাতিল করা হচ্ছে। ফলে অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুল্ক ছাড়াও অন্যান্য শুল্ক (ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক, নিয়ন্ত্রক শুল্ক) দিতে হয়।

ট্যুর অপারেটর পরিষেবাগুলিতে বিদ্যমান কর ছাড় প্রত্যাহার করার প্রস্তাব করা হতে পারে। বিনোদন পার্ক, থিম পার্কে মুসাক ৭ দশমিক ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে রোমিং খরচ বাড়তে পারে। নিলামকারী, নিরাপত্তা পরিষেবা এবং লটারি টিকিট ১০ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স দেওয়া হতে পারে। ইটের ওপর বিদ্যমান সুনির্দিষ্ট কর ১০ থেকে বাড়িয়ে ২০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হতে পারে। ফলে নির্মাণ ব্যয় বাড়বে। আইসক্রিম ও কার্বনেটেড বেভারেজের ওপর ভ্যাট বাড়ানোর প্রস্তাব করা হতে পারে। ফলে আইসক্রিম ও কোমল পানীয়ের দাম বাড়বে।

মোবাইল ফোন সিম ব্যবহারে প্রদত্ত সেবার বিপরীতে সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ বাড়ানো হতে পারে। এতে মোবাইল কল ও ইন্টারনেট ব্যবহারের খরচ বাড়তে পারে। ই-সিম সরবরাহের ক্ষেত্রে, ২০০ টাকার বিপরীতে ৩০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

রেফারেল বা বিশেষায়িত হাসপাতালের শুল্কমুক্ত সুবিধার উপর 1 শতাংশ শুল্ক দিয়ে মেডিকেল ডিভাইস এবং সরঞ্জাম আমদানির অনুমতি দেওয়া হয় কিছু শর্ত মেনে চলা সাপেক্ষে। বাজেটে ২০০টির বেশি মেডিকেল ডিভাইস ও যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে তা বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হতে পারে। ফলে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা ব্যয় বাড়তে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বাজেট ২০২৪-২৫ : পণ্যের দাম বাড়তে পারে

আপডেট সময় : ১০:১৩:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ জুন ২০২৪

Budget 2024-25 :  আগামী অর্থবছরের (২০২৪-২৫) বাজেটে বেশ কিছু পণ্য ও পরিষেবার ওপর শুল্ক আরোপ করা হতে পারে। এতে আইসক্রিম, পানীয়, ইট, এলইডি বাল্ব, তামাকজাত দ্রব্য ইত্যাদির দাম বাড়তে পারে। অর্থ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দায়িত্বশীল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সিগারেট উৎপাদন পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক ও মূল্যের মাত্রা বাড়ানো হতে পারে। তিন স্তরের সিগারেটের ওপর ৬৫.৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে সব ধরনের সিগারেটের দাম বাড়তে পারে। প্রতি ১০ গ্রাম জর্দার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৪৮ টাকা এবং একই পরিমাণ গুলের দাম ২৫ টাকা। যারা পান-জর্দা খাওয়ার অভ্যাস তাদের খরচ বাড়বে।

গৃহস্থালির পানির ফিল্টার আমদানিতে শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। দেশে উৎপাদনের কারণে ওয়াটার ফিল্টার আমদানিতে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হতে পারে। বিদ্যুৎ বিল বাঁচাতে অনেকেই বাড়িতে এলইডি বাল্ব ব্যবহার করেন। এলইডি বাল্ব ও এনার্জি সেভিং বাল্বের আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ বাড়ানো হতে পারে।

কাজুবাদাম চাষ রক্ষার অংশ হিসেবে খোসাযুক্ত কাজুবাদামের আমদানি শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হচ্ছে। ফলে আমদানি করা কাজুবাদামের দাম বাড়তে পারে। দেশে ফ্রিজ-এসি তৈরিতে ব্যবহৃত কম্প্রেসার ও সব ধরনের উপকরণের ওপর ভ্যাট ও শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। তাই এসি ও ফ্রিজের দাম বাড়তে পারে। LRPC তার আমদানিতে শুল্ক বাড়াতে পারে। তাহলে নির্মাণ খাতে খরচ বাড়বে।

বিদ্যুতের বড় ক্ষতি, পানি বিক্রি করে লাভ আসবে

যানবাহন সিএনজি-এলপিজিতে রূপান্তরের জন্য ব্যবহৃত কিট, সিলিন্ডার ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ আমদানিতে শুল্ক ৩ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হচ্ছে। যানবাহন পরিবর্তনের খরচ বাড়তে পারে। আবার লোডশেডিং মোকাবিলায় বাসাবাড়ি বা শিল্প-কারখানায় জেনারেটরের ব্যবহার বাড়ছে। সেদিকেও নজর দিয়েছে এনবিআর। সমাবেশ ও জেনারেটর তৈরিতে ব্যবহৃত উপকরণ বা যন্ত্রাংশ আমদানিতে এক শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হচ্ছে। অভ্যন্তরীণ বাজারে জেনারেটরের দাম বাড়তে পারে। আমদানি করা ম্যাকরেল মাছের ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর যোগ করলে দাম বাড়তে পারে।

শিল্পে ব্যবহৃত ৩৩টি পণ্যের কাঁচামাল আমদানিতে এক শতাংশ শুল্ক ধার্য করা হচ্ছে। এই তালিকায় রয়েছে অশোধিত ভোজ্য তেল, শিরিষ কাগজ তৈরিতে ব্যবহৃত টিউব লিসেনিং জেল, কৃত্রিম কোরান্ডাম, অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড, প্যাট চিপস তৈরিতে ব্যবহৃত ইথিলিন গ্লাইকল, জলের মোটর তৈরিতে ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়াম ইঙ্গট, ফ্লুরোসেন্ট ল্যাম্পের উপাদান, গ্লাস, প্লাস্টিক, LED বাল্ব LED টেলিভিশন, বাতি উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়। ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়াম খাদ ইত্যাদির দাম বাড়তে পারে।

অর্থনৈতিক অঞ্চল ও হাইটেক পার্কে শিল্প প্রতিষ্ঠানের মূলধনী যন্ত্রাংশ ও নির্মাণসামগ্রীর আমদানি প্রত্যাহার করে ১ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হচ্ছে। এ ছাড়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়নে ডেভেলপারের আনা ব্যবহৃত উপকরণের ওপর এক শতাংশ শুল্ক আরোপ এবং অর্থনৈতিক অঞ্চলে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানগুলোর শুল্কমুক্ত সুবিধায় গাড়ি আমদানির সুযোগ বাতিল করা হচ্ছে। ফলে অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুল্ক ছাড়াও অন্যান্য শুল্ক (ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক, নিয়ন্ত্রক শুল্ক) দিতে হয়।

ট্যুর অপারেটর পরিষেবাগুলিতে বিদ্যমান কর ছাড় প্রত্যাহার করার প্রস্তাব করা হতে পারে। বিনোদন পার্ক, থিম পার্কে মুসাক ৭ দশমিক ৫ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে রোমিং খরচ বাড়তে পারে। নিলামকারী, নিরাপত্তা পরিষেবা এবং লটারি টিকিট ১০ শতাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স দেওয়া হতে পারে। ইটের ওপর বিদ্যমান সুনির্দিষ্ট কর ১০ থেকে বাড়িয়ে ২০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হতে পারে। ফলে নির্মাণ ব্যয় বাড়বে। আইসক্রিম ও কার্বনেটেড বেভারেজের ওপর ভ্যাট বাড়ানোর প্রস্তাব করা হতে পারে। ফলে আইসক্রিম ও কোমল পানীয়ের দাম বাড়বে।

মোবাইল ফোন সিম ব্যবহারে প্রদত্ত সেবার বিপরীতে সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ বাড়ানো হতে পারে। এতে মোবাইল কল ও ইন্টারনেট ব্যবহারের খরচ বাড়তে পারে। ই-সিম সরবরাহের ক্ষেত্রে, ২০০ টাকার বিপরীতে ৩০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

রেফারেল বা বিশেষায়িত হাসপাতালের শুল্কমুক্ত সুবিধার উপর 1 শতাংশ শুল্ক দিয়ে মেডিকেল ডিভাইস এবং সরঞ্জাম আমদানির অনুমতি দেওয়া হয় কিছু শর্ত মেনে চলা সাপেক্ষে। বাজেটে ২০০টির বেশি মেডিকেল ডিভাইস ও যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে তা বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হতে পারে। ফলে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা ব্যয় বাড়তে পারে।